রিকশা

জনপ্রিয়তার উৎস ও আবিষ্কারের গল্প

  বাংলাদেশের কথা ডেস্ক
  প্রকাশিতঃ দুপুর ০২:১২, সোমবার, ২৯ নভেম্বর, ২০২১, ১৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৮
১৯৪০ সালের দিকের একটি জাপানি রিকশা
১৯৪০ সালের দিকের একটি জাপানি রিকশা

রিকশা আবিস্কার হয়েছে জাপানে, পেটেন্ট পেয়েছে যুক্তরাষ্ট্রে, নানাভাবে সংস্কার হয়েছে থাইল্যান্ড ও সিঙ্গাপুরে। কিন্তু বিস্ময়করভাবে রিকশার দেশ হয়েছে বাংলাদেশ, রিকশার শহর হয়েছে ঢাকা। শুধু তাই নয়, গিনেজ ওয়ার্ল্ড রেকর্ডস ২০১৪ সালের ২২শে নভেম্বর ঢাকাকে রিকশার নগরী হিসেবে স্বীকৃতি দিয়েছে।

 

১৯৩৭ সালে নারায়ণগঞ্জের এক পাট কোম্পানি রেলি ব্রাদার্সের এক কেরানী যদু গোপাল দত্ত কলকাতা থেকে একটি রিকশা নিয়ে আসেন। সেখান থেকেই রিকশার শুরু। এর আগে পূর্ববঙ্গে কেউ রিকশা দেখেননি।

এরপর তার দেখাদেখি অনেকেই রিকশা আনতে শুরু করেন। এরপর ঢাকা পৌরসভা ১৯৪১ সালে রিকশার লাইসেন্স দিতে শুরু করে। পৌরসভার রেকর্ড মতে ১৯৪৪ সালেও ঢাকায় রিকশার সংখ্যা হয় ৩৭টি।

ঢাকার প্রথম রিকশাটি ছিলো প্যাডেলে। মজার বিষয় হচ্ছে, প্রথমদিকে কয়েকটি হাতে টানা রিকশাও ঢাকায় আনা হয়েছিলো। কিন্তু মানুষের মাঝে বিরুপ প্রতিক্রিয়া হওয়ায় ঢাকার পৌরসভা সেটি নিষিদ্ধ করে। কারণ গরু বা ঘোড়ার গাড়ির পশু যেভাবে গাড়ি টেনে নিয়ে যায়, মানুষকেও সেভাবে রিকশাটি টানতে হতো।

মানব-চালিত মানববাহী এই বাহনটি বাংলাদেশের বাইরে আর কোন দেশেই এতো পরিমাণে নেই। বর্তমানে শুধু ঢাকা শহরেই রিকশা আছে ১৫ লাখ। আর সারাদেশে কত আছে তার কোন হিসেব নেই। ঢাকার ৪০ শতাংশ মানুষ এখনও নিয়মিত চলাচলের ক্ষেত্রে রিকশার ওপর নির্ভরশীল।

কিন্তু প্রশ্ন হচ্ছে, ১৯৫০ সালের আগেই বেশিরভাগ দেশ থেকে রিকশা উঠে গেলেও বাংলাদেশে কেন এখনও রিকশা রয়ে গেছে?

বিশেষজ্ঞরা বলেন, বাংলাদেশে রিকশা রয়ে যাওয়ার মূল কারণটিই অর্থনৈতিক। এ দেশে প্রতিবছর নদীর গর্ভে বিলিন হয় লাখো মানুষের পরিবার। এছাড়াও নানান কারণে বেকার হয়ে যাওয়া মানুষ প্রাথমিক আয়ের জন্য বেছে নেয় রিকশা।    

রিকশার লাইসেন্স লাগলেও রিকশা চালাতে কোনও লাইসেন্স লাগে না। যে কেউ ইচ্ছে করলেই একটা রিকশা নিয়ে বেড়িয়ে পড়তে পারে।

অন্যদিকে ধনী গরিব সবাই রিকশায় চড়েন। কাছাকাছি কোথাও যেতে রিকশার জুড়ি নেই। আর অন্যান্য যাতায়াত ব্যবস্থা ভালো না হওয়ায় রিকশাতেই ভরসা করেন সাধারণ মানুষ। তাই বিভিন্ন দেশে রিকশা কমলেও বাংলাদেশে এখনও জনপ্রিয়তার শীর্ষে রয়েছে এই বাহনটি।

Share This Article

শান্তিতে নোবেল বিজয়ী কে এই আলেস বিলিয়াতস্কি?

আধুনিক প্রযুক্তিসম্পন্ন নিরবচ্ছিন্ন গ্রিড পেতে কাজ করছে সরকার : জ্বালানি প্রতিমন্ত্রী

রাসুলের আদর্শ অনুসরণেই মানবজাতির মুক্তি : ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের আমির

সেনা অভ্যুত্থান : ১০ লাখের বেশি মানুষ বাস্তুচ্যুত মিয়ানমারে

মুক্তিপণ দেওয়ার পরও বাঁচলেন না বাঁচতে পারলেন না সোহেল

বাংলাদেশ,শ্রীলংকা নাকি আমেরিকা: মাথাপিছু ঋণ কার বেশি

বিশ্ববাজারে কমেছে চিনি-মাংস-দুধের দাম, বেড়েছে ধান-গমের : জাতিসংঘ

বিদেশে পাঠানোর নামে কোটি কোটি টাকা হাতিয়েছে চক্রটি

দলীয় শৃঙ্খলা ভঙ্গ করায় বিএনপির ৪ নেতাকে নোটিশ

শিক্ষকের পা ছুঁয়ে শ্রদ্ধা জানালেন তথ্যমন্ত্রী