রোহিঙ্গা সংকটের দায়িত্ব ভাগ করে নিন: রাষ্ট্রদূত ফাতিমা

  বাংলাদেশের কথা ডেস্ক
  প্রকাশিতঃ সকাল ১১:২৪, শনিবার, ১১ ডিসেম্বর, ২০২১, ২৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৮

রোহিঙ্গা সঙ্কট দীর্ঘায়িত হওয়ায় আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় ও জাতিসংঘের সংশ্লিষ্ট সংস্থাসমূহকে এর দায়ভার ও দায়িত্ব ভাগাভাগি করে নিতে প্রচেষ্টা আরও বৃদ্ধি করার আহ্বান জা‌নি‌য়ে‌ছে বাংলা‌দেশ।

শুক্রবার জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদে ‘বিশেষ অর্থনৈতিক সহায়তাসহ জাতিসংঘের মানবিক ও দুর্যোগ-ত্রাণ সহায়তার সমন্বয় জোরদার করা’শীর্ষক সাধারণ বিতর্কে প্রদত্ত বক্তব্যে এ আহ্বান জানান জাতিসংঘে নিযুক্ত বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধি রাষ্ট্রদূত রাবাব ফাতিমা।

রাষ্ট্রদূত ফা‌তিমা জাতিসংঘ ও অন্যান্য মানবাধিকার সংস্থাগুলোর সহযোগিতার মাধ্যমে বাংলাদেশে আশ্রিত রোহিঙ্গাদের যে মানবিক সহায়তা দিয়ে যাচ্ছে তা তুলে ধরেন। তি‌নি মিয়ানমার পরিস্থিতির ওপর আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের আরও বেশি মনোযোগ বাড়ানোর অনুরোধ জানান, যাতে জোরপূর্বক বাস্তুচ্যুত ১.১ মিলিয়ন রোহিঙ্গাদের নিজভূমি মিয়ানমারে নিরাপদ ও টেকসই প্রত্যাবর্তনের উপযোগী পরিবেশ তৈরি হয়।

রোহিঙ্গা সঙ্কটের ফলে এ অঞ্চলে ইতোমধ্যে যে জটিল রাজনৈতিক ও মানবিক পরিস্থিতি বিরাজ করছে, সংকট দীর্ঘায়িত হলে তা আরও জটিলতর পরিস্থিতির সৃষ্টি করবে ব‌লে উল্লেখ করেন বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধি।

প্রাকৃতিক দুর্যোগ ও জলবায়ু পরিবর্তনজনিত মানবিক পরিস্থিতিতে দুর্যোগ ঝুঁকি হ্রাস, প্রতিরোধ, অভিযোজন, প্রতিকূলতা মোকাবিলা করে ঘুরে দাঁড়ানোর সামর্থ্য অর্জন, এাণ ও প্রশমনের ক্ষেত্রে বাংলাদেশ যে উত্তম অনুশীলন এবং বিশেষ বিনিয়োগ করে যাচ্ছে তা উল্লেখ করেন রাষ্ট্রদূত ফাতিমা।

তিনি বলেন, আমরা ‘মুজিব জলবায়ু সমৃদ্ধি পরিকল্পনা’ গ্রহণ করেছি যা আমাদের জলবায়ু নাজুক পরিস্থিতি থেকে জলবায়ুর প্রতিকূলতা মোকাবিলা করে ঘুরে দাঁড়ানোর সামর্থ্য অর্জন ও সমৃদ্ধিপূর্ণ পরিস্থিতির দিকে ধাবিত করতে সাহায্য করছে।

প্রাকৃতিক দুর্যোগ ও জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে বাস্তুচ্যুত হওয়ার ক্রমবর্ধমান ঘটনা প্রসঙ্গে রাষ্ট্রদূত ফাতিমা বলেন, জলবায়ু পরিবর্তনের ফলে বাস্তুচ্যুতদের মানবিক চাহিদা মেটাতে জাতিসংঘের সংশ্লিষ্ট সংস্থাসমূহ ও অন্যান্য অংশীজনদের মধ্যে পারস্পরিক সহযোগিতা ও সমন্বয় বাড়ানো খুবই প্রয়োজন। এক্ষেত্রে তিনি প্ল্যাটফর্ম অন ডিজাসটার ডিসপ্লেসমেন্টের বিভিন্ন কর্মকাণ্ড তুলে ধরেন।

জলবায়ু পরিবর্তনে জরুরি সাড়া দান পর্যায় থেকে প্রস্তুতি ও প্রতিকূলতা মোকাবিলা করে ঘুরে দাঁড়াতে সক্ষম পর্যায়ে উত্তরণের ক্ষেত্রে জাতীয় অগ্রাধিকার ও মাঠ পর্যায়ের বাস্তব পরিস্থিতি বিবেচনার গুরুত্ব তুলে ধরেন। তিনি বলেন, উন্নয়ন কর্মকাণ্ড পরিচালনার ক্ষেত্রে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে অবশ্যই মানবিক সহযোগিতার ওপর নির্ভরশীলতা হ্রাস ও প্রতিকূলতা মোকাবিলায় সক্ষম সমাজ বিনির্মাণের দিকে মনোযোগ দিতে হবে।

যে কোনো মানবিক সংকটে নারীরাই প্রথম সাড়া দেয় এবং কেন্দ্রীয় ভূমিকা পালন করে মর্মে উল্লেখ করে রাষ্ট্রদূত ফা‌তিমা দুর্যোগ ঝুঁকি হ্রাস ও প্রশমনের ক্ষেত্রে লিঙ্গ-সংবেদনশীল নীতি জোরদার কারার আহ্বান জানান।

সংঘাতপূর্ণ পরিস্থিতিতে মানবিক সহযোগিতার প্রবেশাধিকার না দেওয়া এবং মানবাধিকার কর্মী ও মানবিক সাহায্যের স্থাপনা ও সরঞ্জামাদির ওপর নির্বিচারে সশস্ত্র হামলার বিষয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেন রাষ্ট্রদূত ফাতিমা। এধরনের সহিংসতার দায়বদ্ধতা নিরুপণের গুরুত্বের ওপর জোর দেন তিনি।

জা‌তিসং‌ঘের বাংলাদেশ মিশন জানায়, সাধারণ বিতর্কের পর সাধারণ পরিষদে জাতিসংঘের মানবিক ও দুর্যোগ-ত্রাণ সহযোগিতার সমন্বয় শক্তিশালীকরণ বিষয়ক চারটি রেজুলেশন গৃহীত হয়। এর মধ্যে ‘গ্রুপ-৭৭ ও চীন’ এর পক্ষে প্রাকৃতিক দুর্যোগ বিষয়ক রেজুলেশনটি গ্রহণের ক্ষেত্রে সমন্বয় করে বাংলাদেশ।

বিষয়ঃ রোহিঙ্গা

Share This Article


রেমিট্যান্স আনার অনুমতি পেল মোবাইল ব্যাংকিং

ডেঙ্গুতে আরও ৩ মৃত্যু, হাসপাতালে ভর্তি ৫২৩

পর্যটন মেলা শুরু ১ ডিসেম্বর

এএসপি পদমর্যাদার ৫০ কর্মকর্তার পদায়ন

২৪ ঘণ্টায় আরও একজনের মৃত্যু, শনাক্ত ১১

৪১তম বিসিএসের মৌখিক পরীক্ষা শুরু ৫ ডিসেম্বর

১০ টাকায় টিকিট কেটে চক্ষু পরীক্ষা করালেন প্রধানমন্ত্রী

বন্দি জঙ্গিরা যেন রাষ্ট্রবিরোধী তৎপরতা চালাতে না পারে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

‘প্রতিবেশী প্রথম’ নীতিতে বিশেষ স্থান বাংলাদেশের: মুর্মু

রোহিঙ্গাদের সহায়তায় সাড়ে ৭ মিলিয়ন ডলার দেবে নেদারল্যান্ডস

তেল গ্যাস বিদ্যুতের দাম বাড়াতে-কমাতে পারবে সরকার, সংশোধন হচ্ছে আইন

করোনায় মৃত্যু ১, শনাক্ত ২৯ জন