সাইবার হয়রানির শিকার নারী: মামলায় অনীহা যে কারণে

  বাংলাদেশের কথা ডেস্ক
  প্রকাশিতঃ রাত ০৮:৫৫, বৃহস্পতিবার, ২ ডিসেম্বর, ২০২১, ১৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৮
সাইবার হয়রানির শিকারদের অভিযোগের হার
সাইবার হয়রানির শিকারদের অভিযোগের হার

নিজস্ব প্রতিবেদক: বর্তমানে ডিজিটাল বাংলাদেশ গঠন প্রক্রিয়ার সাথে সাথে প্রত্যন্ত অঞ্চলেও ছড়িয়ে পড়েছে প্রযুক্তির ছোঁয়া। গ্রামে থেকেই মানুষ ব্যবহার করছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম থেকে শুরু করে অনলাইন মাধ্যমগুলো। নিচ্ছেন প্রযুক্তি উন্নয়নের সুবিধা। এমতবস্থায় অনেকেই ডিজিটাল হয়রানির শিকারও হচ্ছেন, যার মধ্যে নারীদের সংখ্যাই বেশি। তবে পুলিশের সাইবার সাপোর্ট ফর উইমেন ডেস্কের তথ্য বিশ্লেষণ করে দেখা যায়, ভূক্তভোগীদের ৯৮ শতাংশই মামলা করতে চান না।কেন করতে চাননা?

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, সাইবার বুলিং, ট্রলিং, মানহানি, ব্যক্তিগত তথ্য ব্যবহার ও প্রকাশ, ব্ল্যাকমেইলিং, প্রতিশোধ, পর্ণসহ বিভিন্ন উপায়ে নারীদের সাইবার জগতে হয়রানি করা হয়। এতে তারা সামাজিক ও মানসিকভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হন। ভুক্তভোগীরা অধিকাংশ সময় বুঝতে পারেন না কীভাবে, কী আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন এবং কাকে বিষয়টি জানাবেন। অনেক ক্ষেত্রেই পরিবারকে জানাতে বা আইনগত ব্যবস্থা নেওয়ার ক্ষেত্রে পুরুষ পুলিশ-কর্মকর্তার কাছে অভিযোগ জানাতে দ্বিধাবোধ করেন।

পরিসংখ্যান বলছে, দীর্ঘ অনুসন্ধানের পর অপরাধীদের শনাক্ত করা গেলেও ৯৮ শতাংশ অভিযোগকারী মামলা করতে চান না। সামাজিক মর্যাদাহানির ভয় থেকেই তাদের এমন অবস্থান বলে দাবি পুলিশের। তবে বিশেষজ্ঞরা বলছেন, সাইবার জগতের সঠিক ব্যবহার সম্পর্কে ধারণা তৈরী করা গেলেই কেবল এ ধরণের অপরাধ নিয়ন্ত্রণ সম্ভব।

পুলিশের সাইবার সাপোর্ট ফর উইমেন ডেস্কের তথ্য বলছে, গত বছরের ১৬ নভেম্বর থেকে চলতি বছরের ৩১ অক্টোবর পর্যন্ত ডিজিটাল হয়রানীর শিকার হয়ে সাপোর্ট সেন্টারে যোগাযোগ করেছেন ১৭ হাজার ২৮০ জন। এর মধ্যে অভিযোগ করেছেন ১২ হাজার ৬৪১ জন। অপরাধীদের শনাক্তের পর আইনগত ব্যবস্থা নিয়েছেন ১৯৭ জন, যা মোট অভিযোগকারীর ১ দশমিক ৬৬ শতাংশ।

এ বিষয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজবিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক ড. এ এস এম আমানউল্লাহ বলেন, সম্প্রতি আমরাও দুটি জরিপ সম্পন্ন করেছি। সেখানেও দেখা গেছে সাইবার হয়রানীর শিকার হলেও ৮০ শতাংশ নারী এ বিষয়ে আইনানুগ ব্যবস্থা নিতে চান না। তাদের মধ্যে এক ধরণের সামাজিক মর্যাদাহানি ও ভোগান্তি ভীতি কাজ করে। এ ধরণের সংকট থেকে উত্তরণের জন্য কেবল ডিজিটাল সিকিউরিটি অ্যাক্ট নয়, প্রচলিত আইনের সঠিক ব্যবহার নিশ্চিত করণের ওপর জোর দেয়া প্রয়োজন।

বিষয়ঃ ICT

Share This Article


বন্ধ করে দেওয়া হবে ৫০০ ইটভাটা: পরিবেশমন্ত্রী

বাংলাদেশের সঙ্গে যুদ্ধ করার চেষ্টা করছে মিয়ানমার: র‌্যাব ডিজি

রোজার আগেই আমদানি করা হবে পেঁয়াজ

পুকুরে ধরা পড়ল রুপালি ইলিশ

‘স্বাস্থ্যসেবা সহজলভ্য করতে সরকার নিরন্তর প্রয়াস চালাচ্ছে’

‘পরিবেশবান্ধব ব্লক ইট তৈরিতে প্রণোদনা প্যাকেজ ঘোষণা করবে সরকার’

রংপুরে সূর্যমুখীর চাষ বেড়েছে

সরকারের একার পক্ষে দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণ করা কঠিন, বললেন দীপু মনি

ঢাকা সফরে আসছেন বিশ্বব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক

গণতান্ত্রিক ধারা অব্যাহত আছে বলেই দেশে উন্নয়ন হচ্ছে : প্রধানমন্ত্রী

বিদ্যুতের ভর্তুকি আমরা সমন্বয় করতে চাই : ওবায়দুল কাদের

বাঁ থেকে এলিন লাউবাকের, মাইকেল শিফার ও আফরিন আক্তার -ছবি : সংগৃহীত

সম্পর্ক এগিয়ে নিতে ঢাকায় মার্কিন প্রতিনিধি দল