ইসির সঙ্গে বৈঠকে সেনা কর্মকর্তারা

  বাংলাদেশের কথা ডেস্ক
  প্রকাশিতঃ রাত ০৯:১৬, সোমবার, ১১ ডিসেম্বর, ২০২৩, ২৬ অগ্রহায়ণ ১৪৩০

 এবারের নির্বাচনে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সাড়ে সাত লাখ সদস্য ভোটের মাঠে কাজ করবে। তাদের মধ্যে আনসার সদস্য ৫ লাখ ১৬ হাজার জন, পুলিশ ও র‌্যাব এক লাখ ৮২ হাজার ৯১ জন, কোস্টগার্ড দুই হাজার ৩৫০ জন এবং বিজিবি সদস্য থাকবেন ৪৬ হাজার ৮৭৬ জন।

দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আইনশৃঙ্খলা রক্ষায় সেনাবাহিনী মোতায়েনের বিষয়ে আলোচনার জন্য বাহিনীটির প্রিন্সিপাল স্টাফদের সঙ্গে বৈঠকে বসেছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)।

সোমবার রাত সোয়া সাতটার দিকে নির্বাচন কমিশন সচিবালয়ে সভাকক্ষে এ সভা শুরু হয়।

বৈঠকে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর লেফট্যানেন্ট জেনারেল ওয়াকার-উজ-জামানের (সশস্ত্র বাহিনী বিভাগের প্রিন্সিপাল স্টাফ অফিসার, পিএসও) নেতৃত্বে তিন সদস্যের একটি দল এবং নির্বাচন কমিশনের পক্ষে প্রধান নির্বাচন কমিশনার কাজী হাবিবুল আউয়ালের নেতৃত্বে ইসির ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত আছেন।

বৈঠকে আরও উপস্থিত আছেন, স্বরাষ্ট মন্ত্রণালয়ের জননিরাপত্তা বিভাগের সিনিয়র সচিব মো. মোস্তাফিজুর রহমান ও প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব গোলাম মো.হাসিবুল আলম।

ইসি সূত্রে জানা যায়, এবারের নির্বাচনে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সাড়ে সাত লাখ সদস্য ভোটের মাঠে কাজ করবে। তাদের মধ্যে আনসার সদস্য ৫ লাখ ১৬ হাজার জন, পুলিশ ও র‌্যাব এক লাখ ৮২ হাজার ৯১ জন, কোস্টগার্ড দুই হাজার ৩৫০ জন এবং বিজিবি সদস্য থাকবেন ৪৬ হাজার ৮৭৬ জন।

নির্বাচনে অন্যান্য আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর পাশাপাশি সেনা মোতায়েনও হতে পারে বলে বেশ কদিন ধরেই বলছিলেন নির্বাচন কমিশনের কর্মকর্তারা। গত ৭ ডিসেম্বর টাঙ্গাইলের জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে নির্বাচন কমিশনার মো. আলমগীর বলেছেন, 'নির্বাচনে প্রয়োজনে সেনাবাহিনী মোতায়েন করা হবে। অতীতের মতো সেনাবাহিনী ম্যাজিস্ট্রেটের নিয়ন্ত্রণে কাজ করবে। আমরা এখনও সিদ্ধান্ত নিইনি। অতীতের জাতীয় নির্বাচনে সেনাবাহিনী মোতায়েন ছিল। এবার সেনাবাহিনী মোতায়েনের সম্ভাবনা বেশি রয়েছে।’ এ বিষয়টি চূড়ান্ত করতে আজকের বৈঠক। ৯ ডিসেম্বর এই বৈঠকের ব্যাপারে জানায় নির্বাচন কমিশন।

ইসি ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী, নির্বাচনের প্রার্থিতা প্রত্যাহারের শেষ সময় ১৭ ডিসেম্বর। রিটার্নিং কর্মকর্তারা প্রতীক বরাদ্দ করবেন ১৮ ডিসেম্বর। নির্বাচনি প্রচারণা চলবে ৫ জানুয়ারি সকাল ৮টা পর্যন্ত। ভোটগ্রহণ হবে ৭ জানুয়ারি।

নির্বাচন কমিশনের তথ্য অনুযায়ী, ৩০০ আসনে মনোনয়নপত্র দাখিল হয়েছিল দুই হাজার ৭১৬টি। এর মধ্যে বাছাইয়ের সময় রিটার্নিং কর্মকর্তারা বাতিল করেছেন ৭৩১টি, যা মোট দাখিল করা মনোনয়নপত্রের ২৬ দশমিক ৯২ শতাংশ বা ২৭ শতাংশ। আর বৈধ হয়েছে এক হাজার ৯৮৫টি মনোনয়নপত্র, যা দাখিল করা মনোনয়নপত্রের ৭৩ দশমিক ০৮ শতাংশ বা ৭৩ শতাংশ।

ইসি সচিব মো. জাহাংগীর আলম জানান, রিটার্নিং কর্মকর্তার সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে ৫৬১টি আপিল আবেদন জমা পড়েছে। ১৫ ডিসেম্বর পর্যন্ত শুনানি করে আপিল আবেদনগুলো নিষ্পত্তি করবে নির্বাচন কমিশন।

Share This Article


তারাবি-সেহরিতে লোডশেডিং থাকবে না: প্রধানমন্ত্রী

রমজানের অফিস সময় নির্ধারণ

পুলিশের হাতে মাদক দেখলেই চাকরি থাকবে না: আইজিপি

রোজায় অফিসের সময়সূচি নির্ধারণ

এমআরটি-১ প্রকল্প বাস্তবায়নে পাতাল রেল যুগে পৌঁছাবে দেশ

আজ সংরক্ষিত আসনের এমপিদের শপথ

আরাকান আর্মির হামলায় ৮০ জান্তা সেনা নিহত

ওষুধ ও হার্টের রিংয়ের দাম কমাতে হবে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

সংরক্ষিত নারী আসনের এমপিদের গেজেট প্রকাশ

৫ বছরে ৬০ লাখ কর্মী বিদেশে পাঠানোর কর্মপরিকল্পনা, জানালেন প্রতিমন্ত্রী

‘দেশে ১৬ লাখ ৭৯ হাজার মেট্রিক টন খাদ্য মজুদ রয়েছে’

জঙ্গিবাদ ও সন্ত্রাস দমনে পুলিশকে সক্রিয় ভূমিকা পালনের আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর