দৃশ্যমান হচ্ছে ঢাকা-আশুলিয়া এক্সপ্রেসওয়ে

  নিউজ ডেস্ক
  প্রকাশিতঃ সন্ধ্যা ০৭:৩৯, শনিবার, ২৫ নভেম্বর, ২০২৩, ১০ অগ্রহায়ণ ১৪৩০

উত্তরার আবদুল্লাপুর, কামারপাড়া, ধোউর, আশুলিয়া, জিরাবো, বাইপাইলসহ প্রকল্পের বেশ কিছু জায়গা ঘুরে দেখা যায়, শ্রমিকেরা দিন-রাত প্ররিশ্রম করে যাচ্ছে। বেশ কিছু জায়গায় মাটি কাটার কাজ, মাটি ভরাটের কাজ, কিছু জায়গায় পাইলিংয়ের কাজ করা হচ্ছে। আব্দুল্লাহপুরে বড় একটি খুঁটি নির্মাণ করা হচ্ছে। বিশাল শক্ত এই খুঁটির উচ্চতা হবে ৪০ মিটার। আশুলিয়ার চার লেনের সড়কের উপর যে উড়ালপথটি নির্মাণ করা হবে, এই খুঁটির উপর ভর করে ঢাকামুখী প্রবেশ করবে।

ধীরে ধীরে মাথা তুলে দাঁড়াচ্ছে ঢাকা-আশুলিয়া এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ে। প্রকল্প অনুমোদনের প্রায় ছয় বছর পর আশুলিয়া অংশে দৃশ্যমান হচ্ছে খুঁটি।

সাভার, আশুলিয়া, নবীনগর ও ইপিজেডসংলগ্ন শিল্প এলাকার যানজট নিরসন এবং উত্তরাঞ্চলের সঙ্গে যোগাযোগ ব্যবস্থা দ্রুত উন্নয়ন করতে ঢাকা-আশুলিয়া উড়ালপথ নির্মাণ প্রকল্পটি হাতে নেয়া হয়েছে। এর ফলে দেশের উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলের প্রায় ২০টি এবং দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের প্রায় পাঁচ-ছয়টি জেলার মানুষ আশুলিয়া-নবীনগর-বাইপাইল হয়ে সহজে ঢাকায় প্রবেশ করতে পারবে। সব মিলিয়ে প্রায় ৩০টি জেলার আনুমানিক চার কোটি মানুষ এই প্রকল্প বাস্তবায়নে লাভবান হবে বলে আশা করা যাচ্ছে।

নকশা অনুযায়ী, সাভারের ইপিজেড থেকে রাজধানীর হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের কাওলা পর্যন্ত নির্মিত হবে এই উড়াল মহাসড়ক। এটি যুক্ত হবে নির্মীয়মাণ ঢাকা এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ের সঙ্গে। ঢাকা এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ের সঙ্গে আশুলিয়ার পথ যুক্ত হলে সাভারের ইপিজেড থেকে ঢাকা-চট্টগ্রাম সড়কের কুতুবখালী পর্যন্ত এক রেখায় পাড়ি দেওয়া যাবে ৪৪ কিলোমিটার সড়ক। ওঠানামার পথসহ (র‌্যাম্প) এর দৈর্ঘ্য দাঁড়াবে প্রায় ৮২ কিলোমিটার। প্রকল্প এলাকাকে তিন ভাগে ভাগ করে এরই মধ্যে বেশ কিছু জায়গায় নির্মাণকাজ শুরু হয়েছে।

গত সোমবার রাজধানী উত্তরার আবদুল্লাপুর, কামারপাড়া, ধোউর, আশুলিয়া, জিরাবো, বাইপাইলসহ প্রকল্পের বেশ কিছু জায়গা ঘুরে দেখা যায়, শ্রমিকেরা দিন-রাত প্ররিশ্রম করে যাচ্ছে। বেশ কিছু জায়গায় মাটি কাটার কাজ, মাটি ভরাটের কাজ, কিছু জায়গায় পাইলিংয়ের কাজ করা হচ্ছে। আব্দুল্লাহপুরে বড় একটি খুঁটি নির্মাণ করা হচ্ছে। বিশাল শক্ত এই খুঁটির উচ্চতা হবে ৪০ মিটার। আশুলিয়ার চার লেনের সড়কের উপর যে উড়ালপথটি নির্মাণ করা হবে, এই খুঁটির উপর ভর করে ঢাকামুখী প্রবেশ করবে।

দেশের উত্তর বঙ্গ থেকে আসা রহিম শেখ নামের এক ট্রাকচালক বলেন, ঢাকা-আশুলিয়া এক্সপ্রেসওয়ে সাভার, আশুলিয়া, নবীনগর ও ইপিজেডসংলগ্ন এলাকার যানজট নিরসনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে।

তিনি বলেন, পুরো পথের নির্মাণ শেষ হলে ঢাকার ভেতর বড় গাড়ির চাপ কমবে। খুব দরকার না হলে আন্তঃজেলার বাসগুলো ঢাকার সড়কে নামতে হবে না।

প্রকল্পের অগ্রগতি সম্পর্কে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান সিএমসি কোম্পানির পরিচালন ও অবকাঠামো বিভাগের জ্যেষ্ঠ ব্যবস্থাপক গু ফেং বলেন, এই অঞ্চলে সড়কে বিদ্যুতের প্রচুর তার রয়েছে। চাইলেই এগুলো দ্রুত অপসারণ করা যাচ্ছে না। আবার দীর্ঘ সময় বিদ্যুৎ বন্ধ রেখেও কাজ করা যায় না।

নিচের সড়ক খুব আঁকাবাঁকা উল্লেখ করে গু ফেং বলেন, প্রকল্পের জমি বুঝে পাওয়াও কঠিন। নিচে আঁকাবাঁকা থাকলেও উড়ালপথ সোজা হতে হবে। তাই নিচের সড়কও সোজা করা গুরুত্বপূর্ণ। মাটির নিচে ইউটিলিটি লাইন অপসারণ করা চ্যালেঞ্জ। কোনো কিছুই গোছানো নয়। আবার মূল পথের কাজ শুরু করার আগে বাইপাস (গাড়ি চলাচলের বিকল্প পথ) সড়ক তৈরি করে দিতে হচ্ছে। যেন ট্রাফিক ব্যবস্থা ঠিক থাকে।

ধউর থেকে আশুলিয়ার মাদবরবাড়ির দিকে দুই ধারে স্প্যান বসাতে খুঁটি নির্মাণের কাজ চলছে। মূলত এই সড়কেই প্রথম খুঁটির কাজ শুরু হয়। দৃশ্যমান কাজের অগ্রগতি এখানেই সবচেয়ে বেশি।

জানতে চাইলে প্রকল্প পরিচালক মো. শাহাবুদ্দিন খান বলেন, গত জানুয়ারি থেকে এরই মধ্যে ৯.৫ শতাংশ কাজ হয়েছে। কাজের গতি এখন ভালো। এই অবস্থা থাকলে চলতি অর্থবছরের মধ্যে ২৫ শতাংশ কাজ শেষ করার লক্ষ্য নির্ধারণ করা হয়েছে।

প্রকল্পের নথি অনুযায়ী, ঢাকা-আশুলিয়া উড়াল মহাসড়কের মূল সড়কের দৈর্ঘ্য ২৪ কিলোমিটার। সঙ্গে র‌্যাম্প থাকছে ১০.৮৩ কিলোমিটার। এর সঙ্গে যুক্ত হবে নবীনগরে ১.৯৫ কিলোমিটার উড়ালপথ আর ২.৭২ কিলোমিটার সেতু। প্রকল্প এলাকায় নতুন করে নির্মাণ করা হবে আরো ১৪.২৮ কিলোমিটার সড়ক। ড্রেনেজ এবং ডাক্ট থাকবে ১৮ কিলোমিটার।

প্রকল্পের পরিকল্পনা মতে, রাজধানীর ধউর থেকে আশুলিয়া পর্যন্ত এই আড়াই কিলোমিটার সড়কের অস্তিত্ব পরে আর থাকবে না। এই অংশে পুরোটাই থাকবে উড়ালপথ। নিচের বিদ্যমান সড়কটি ভেঙে তুরাগ নদের প্রবাহকে করা হবে আরো গতিশীল। এই অংশে বড় সেতু করা হবে দুটি। একটি এক্সপ্রেসওয়ের সড়কের জন্য আরেকটি সাধারণ পথ হিসেবে ব্যবহৃত হবে। অর্থাৎ টোলসহ এবং টোলমুক্ত দুই ধরনের পথই উন্মুক্ত থাকছে।

প্রকল্পের নির্মাণ ব্যয় ধরা হয়েছে প্রায় ১৭ হাজার ৫৫৪ কোটি টাকা। এর মধ্যে চীনের এক্সিম ব্যাংক ৯ হাজার ৬৯২ কোটি টাকা ঋণ দেবে। বাকি অর্থের জোগান দেবে বাংলাদেশ সরকার। প্রকল্পটি ২০১৭ সালের নভেম্বরে জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেক) অনুমোদন পায়।

বিষয়ঃ উন্নয়ন

Share This Article


সরকারিভাবে বড় ইফতার পার্টি আয়োজন না করার নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর

গাজায় যুদ্ধবিরতি হলে লোহিত সাগরে হামলা বন্ধের ইঙ্গিত হুথিদেরও

মালিতে সেতু থেকে নদীতে পড়ল বাস, নিহত ৩১

কেন্দ্রে অনিয়ম হলে ভোটগ্রহণ বন্ধ: ইসি আলমগীর

আজ সংরক্ষিত আসনের এমপিদের শপথ

জঙ্গিবাদ ও সন্ত্রাস দমনে পুলিশকে সক্রিয় ভূমিকা পালনের আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর

লক্ষাধিক টাকার ভারতীয় মদসহ চার যুবক গ্রেপ্তার

সব বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়কে ১৫ শতাংশ ট্যাক্স দিতেই হবে

উপজেলা ভোটের পূর্ণাঙ্গ তফসিল কবে, জানালেন অশোক কুমার

রপ্তানি পণ্যের সংখ্যা বাড়াতে হবে : রাষ্ট্রপতি

বুধবার ঢাকার কয়েকটি এলাকায় ১৫ ঘণ্টা গ্যাস থাকবে না

সংরক্ষিত নারী আসনে এমপিদের চূড়ান্ত করে গেজেট প্রকাশ