প্রথমবারের মতো বৈদেশিক ঋণ টাকায় পরিশোধ করলো বাংলাদেশ

  বাংলাদেশের কথা ডেস্ক
  প্রকাশিতঃ বিকাল ০৫:০৯, বুধবার, ৭ জুন, ২০২৩, ২৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩০

প্রথমবারের মতো কোনো বৈদেশিক ঋণ টাকায় পরিশোধ করলো বাংলাদেশ। ঢাকা-আশুলিয়ার এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ের একটি ঋণ ডলারে নয়, টাকায় পরিশোধ করা হয়েছে। এর ফলে দেশের রিজার্ভ সংরক্ষণে ইতিবাচক প্রভাব পড়বে বলে ধারণা করছেন বিশেষজ্ঞরা। প্রায় ১ দশমিক ২ বিলিয়ন টাকার অঙ্কে ১৭ হাজার ৬৫৩ কোটি ব্যয়ে প্রকল্পটির দীর্ঘ ২৪ কিলোমিটার পথ ঢাকাকে সরাসরি আশুলিয়ার সাথে সংযোগ করবে।

 

এই প্রকল্পে চীন মোট খরচের ৮৫ শতাংশ ঋণ হিসেবে দিয়েছে। যেটা ২০ বছরে ২% শতাংশ সুদে ফেরত নেবে দেশটি। এই প্রকল্পের বাকি ১৫ শতাংশ অর্থায়ন করেছে বাংলাদেশ সরকার।

চীনের পক্ষে এই ঋণ দিচ্ছে দেশটির এক্সপোর্ট-ইমপোর্ট ব্যাংক। ঠিকাদার প্রতিষ্ঠান চায়না ন্যাশনাল মেশিনারি ইমপোর্ট অ্যান্ড এক্সপোর্ট কর্পোরেশন প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করছে।

ঋণের অর্থ টাকায় পরিশোধের বিষয়ে প্রকল্পটির পরিচালক শাহাবুদ্দিন খান গণমাধ্যমে বলেন, 'আমরা তাদের (ঠিকাদার) বিলটি টাকায় গ্রহণ করতে রাজি করিয়েছি। কারণ তাদের বাংলাদেশে বেশ কিছু খরচ রয়েছে। বর্তমান প্রেক্ষাপট বিবেচনা করে তারা আমাদের প্রস্তাব গ্রহণ করেছে। '

তিনি জানান, প্রকৌশলী ও কর্মীসহ ২৫০ জনের বেশি চীনা নাগরিক এবং এক হাজার বাংলাদেশি এই প্রকল্পে কাজ করছে। বাংলাদেশের রিজার্ভ সংক্রান্ত পরিস্থিতির উন্নতি না হওয়া পর্যন্ত টাকায় ঋণ প্রদান কার্যক্রম অব্যাহত থাকবে।

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের তথ্যানুযায়ী, আমদানি বিল বেড়ে যাওয়ায় গত বছরের একই দিনে বাংলাদেশের রিজার্ভ কমে ৪২ বিলিয়ন ডলার থেকে ২৯.৯২ বিলিয়ন ডলারে নেমে আসে।

উল্লেখ্য, গত বছরের নভেম্বরে ঢাকা-আশুলিয়া এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ের উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। প্রথম ধাপে এই প্রকল্পে ১৩৩৯ কোটি টাকা অর্থায়ন করা হয় যার মধ্যে বাংলাদেশ সরকার দিয়েছে ৩৪ কোটি টাকা। চলতি মাসে প্রকল্পে ৬০০ কোটি টাকা বিনিয়োগ করা হবে যার মধ্যে ৯০ কোটি টাকা পরিশোধ করবে বাংলাদেশ সরকার।

প্রকল্পের কাজ পুরোপুরি শেষ হলে এটি শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরকে নবীনগর-চন্দ্রা মহাসড়কের আবদুল্লাহপুর, আশুলিয়া, বাইপাইল এবং ঢাকা ইপিজেড অঞ্চলের সাথে সংযুক্ত করবে। এর ফলে রাজধানীতে প্রবেশ ও প্রস্থান দ্রুততম সময়ে সম্ভব হবে।

বিষয়ঃ বাংলাদেশ

Share This Article