১০ হাজার এমএফএস হিসাব জব্দ

  বাংলাদেশের কথা ডেস্ক
  প্রকাশিতঃ সকাল ১০:০৭, রবিবার, ২১ মে, ২০২৩, ৭ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩০

দেশে ডিজিটাল মাধ্যমে হুন্ডির প্রবণতা দিনদিন বেড়েই চলেছে। এর সবচেয়ে বড় প্ল্যাটফরম মোবাইল ফিন্যান্সিয়াল সার্ভিসেস (এমএফএস)। কিছু অসাধু এজেন্ট এ অপরাধে জড়িয়ে পড়ছেন। ফলে বৈধ পথে রেমিট্যান্স কমে যাচ্ছে। তাই হুন্ডির প্রবণতা ঠেকাতে কাজ করছে বাংলাদেশ ফিন্যান্সিয়াল ইন্টেলিজেন্স ইউনিট (বিএফআইইউ)।

এমএফএস ব্যবহার করে হুন্ডিতে লেনদেন করায় এখন পর্যন্ত ১০ হাজারের বেশি হিসাব জব্দ করেছে বিএফআইইউ। যদিও এরই মধ্যে ৪ হাজার হিসাব সচল করা হয়েছে। মোবাইল ব্যাংকিংয়ের পর এজেন্ট ব্যাংকিংয়েও হুন্ডিতে লেনদেন হচ্ছে। জড়িতদের বিরুদ্ধে শাস্তির হুঁশিয়ারি দিয়েছে সংস্থাটি। বাংলাদেশ ফিন্যান্সিয়াল ইন্টেলিজেন্স ইউনিটের (বিএফআইইউ) এক প্রতিবেদনে উঠে এসেছে এসব তথ্য।

জানা যায়, বিদেশে শ্রমিক যাওয়া বাড়লেও হুন্ডির প্রবণতা বৃদ্ধির ফলে ব্যাংকিং চ্যানেলে প্রত্যাশিত রেমিট্যান্স আসছে না। অন্যতম কারণ হিসাবে হুন্ডিকে চিহ্নিত করা হয়। এই চক্রের সদস্যরা বিভিন্ন এমএফএস-এর এজেন্টশিপ নিয়ে এ ব্যবসা পরিচালনা করছেন। এসব এজেন্টশিপের কাছে বিদেশ থেকে শুধু টাকার অঙ্ক ও নম্বর উল্লেখ করে নির্দেশনা আসে। সে আলোকে সুবিধাভোগীর নম্বরে এখান থেকে অর্থ পরিশোধ করা হয়। ফলে প্রবাসীদের অর্থ বৈদেশিক মুদ্রায় আসছে না। যার কারণে রেমিট্যান্স কমে যাচ্ছে।

বিএফআইইউ প্রতিবেদনে দেখা যায়, এমএফএস ব্যবহার করে হুন্ডিতে টাকা আনার অভিযোগ ওঠার পর নিয়মিত তদারকি করছে সংস্থাটি। তদারকির শুরু থেকে এখন পর্যন্ত ১০ হাজার ২২৩ জন সুবিধাভোগীর হিসাব জব্দ করা হয়। এসব হিসাবে জব্দ করা অর্থের অঙ্ক ৩ কোটি ৫১ লাখ ২৯ হাজার ২৩৫ টাকা। এর মধ্যে বৈধ পথে অর্থ পাঠাতে উদ্বুদ্ধ করে আবার ৪ হাজারের বেশি হিসাব সচল করা হয়। সচল করে দেওয়া হিসাবের মধ্য ২৭৫টি হিসাবে বৈধ পথে ১ কোটি ১৬ লাখ টাকা এসেছে।

জানা যায়, এমএফএস-এর মাধ্যমে হুন্ডি লেনদেন ঠেকাতে ১০ মে মোবাইল ব্যাংকিং সার্ভিস প্রোভাইডারদের সঙ্গে বৈঠক করে বিএফআইইউ। সেখানে এ প্রবণতা ঠেকাতে তাদের কিছু নির্দেশনা দেওয়া হয়। এর মধ্যে মোবাইল সার্ভিস প্রদানকারী প্রতিষ্ঠানগুলোকে হুন্ডি প্রতিরোধে প্রো-অ্যাক্টিভভাবে কাজ করতে নির্দেশ দেওয়া হয়। নির্দেশনা অনুযায়ী কাজ না করলে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়ার হুঁশিয়ারি দেয় বিএফআইইউ।

এছাড়া এখন থেকে বাতিলকৃত এজেন্টদের অর্থ আটকে থাকবে, প্রয়োজনে সিজ করা হবে বলে জানানো হয়। পরীক্ষামূলকভাবে সন্দেহজনক চারটি হিসাব যাচাই করে তিনটিতেই হুন্ডির প্রমাণ পেয়েছে সংস্থাটি। এ পরিপ্রেক্ষিতে এজেন্ট ব্যাংকিং ব্যবহার করে সারা দেশে কী অঙ্কের হুন্ডি হচ্ছে, তা যাচাইয়ের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা। সতর্ক এবং কর্মপন্থা ঠিক করতে এরই মধ্যে এজেন্ট ব্যাংকিংয়ের শীর্ষে থাকা ১০টি ব্যাংকের সঙ্গে বৈঠক করেছে বাংলাদেশ ব্যাংকের তত্ত্বাবধানে মানি লন্ডারিং প্রতিরোধের দায়িত্বে থাকা বিশেষায়িত এ ইউনিট।

অন্যদিকে অবৈধ ফরেক্স, বেটিং ও ক্রিপ্টোকারেন্সি সংশ্লিষ্ট লেনদেন প্রতিরোধে কাজ করছে বিএফআইইউ। এ ধরনের ১৯টি সন্দেহজনক লেনদেনের রিপোর্ট পর্যালোচনা করছে সংস্থাটি। এ সংক্রান্ত পাঁচটি কেস স্টাডি, নতুনভাবে লেনদেনে জড়িত ৫৭টি ওয়েবসাইট, ১১টি সোশ্যাল মিডিয়া পেজ ও একটি অ্যাপ পর্যালোচনা করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য আইন প্রয়োগকারী সংস্থা ও বিটিআরসিতে পাঠানো হয়েছে।

সংশ্লিষ্টরা জানান, কেন্দ্রীয় ব্যাংক অনেকদিন ধরে কৃত্রিম উপায়ে দর ধরে রাখায় ডলারের ওপর চাপ তৈরি হয়েছে। রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ শুরুর পর ডলারের দর বেড়ে গত বছরের জুলাই-আগস্টে ১১০ থেকে ১১৪ টাকায় ওঠে। তবে গত সেপ্টেম্বর থেকে সব ব্যাংকে এক দর বেঁধে দেওয়া হয়। এখন প্রবাসীরা প্রতি ডলারে পাচ্ছেন ১০৮ টাকা। আর রপ্তানিতে পাচ্ছেন ১০৬ টাকা। বাংলাদেশ ব্যাংক বিক্রি করছে ১০৪ টাকা ৫০ পয়সায়। দর নিয়ন্ত্রণের পর থেকে রেমিট্যান্স কমছে। গত মার্চে কোনো কোনো ব্যাংক ১০৭ টাকা ঘোষণা দিয়েও ১১৩ টাকা পর্যন্ত দরে ডলার কিনেছিল। এর প্রভাবে টানা ৬ মাস পর মার্চে রেমিট্যান্স আবার ২ বিলিয়ন ডলারের ঘর ছাড়িয়েছিল।

Share This Article


কোরবানিতে ব্রাজিল থেকে গরু পাঠানোর অনুরোধ বাণিজ্য প্রতিমন্ত্রীর

দক্ষিণ আমেরিকায় বাংলাদেশি পণ্যের বাজার বাড়াতে সাহায্য করবে ব্রাজিল

এবার একীভূত হচ্ছে সিটি ব্যাংকের সঙ্গে বেসিক ব্যাংক

ঈদের আগে আরেক দফা বাড়লো সোনার দাম

বৃদ্ধির পথে রিজার্ভ: বাড়ল ৫১ কোটি ডলার!

ঈদ ঘিরে জমজমাট ভৈরবের জুতাশিল্প, ২০০ কোটি টাকার বাণিজ্যের সম্ভাবনা

পোশাকের নতুন বাজার: আওয়ামীলীগ সরকারের শাসনামলে ১০ গুণ বেড়েছে রপ্তানি!

ঈদে যেসব জায়গায় পাওয়া যাচ্ছে নতুন নোট

কমলো এলপি গ্যাসের দাম

এডিবির কাছে আরও বাজেট সহায়তা চায় বাংলাদেশ

ব্যাংক একীভূতকরণে আরও সতর্ক থাকা দরকার: বিশ্বব্যাংক

প্রবৃদ্ধি অর্জনে ভারতের পরের অবস্থানে থাকবে বাংলাদেশ: বিশ্বব্যাংক