সোশ্যাল মিডিয়ার অপরাধ দমনে আসছে ‘সাইবার ইউনিট’

  বাংলাদেশের কথা ডেস্ক
  প্রকাশিতঃ সন্ধ্যা ০৭:৫৩, রবিবার, ২২ জানুয়ারি, ২০২৩, ৮ মাঘ ১৪২৯

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ব্যবহার করে অপরাধ সংঘটনের হার দিনকে দিন বেড়েই চলছে।ফেসবুক, ইমো, হোয়াটসঅ্যাপ, টুইটারের মতো মাধ্যমগুলোতে পর্নোগ্রাফি, ফেসবুক ও ব্যাংক অ্যাকাউন্ট হ্যাকিং, নারীদের সম্মানহানি, অনলাইনে জঙ্গি কার্যক্রম, সাম্প্রদায়িক উসকানি, অপপ্রচারসহ আশঙ্কাজনক অবস্থায় পৌঁছেছে ‘সাইবার অপরাধ’।

 

এমন অপরাধ দমনে পুলিশের বিশেষ ইউনিট ‘সাইবার পুলিশ ইউনিট’ গঠন করা হচ্ছে। এরই মধ্যে সংস্থাটির সদরদপ্তর থেকে একটি প্রস্তাব স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে রয়েছে। পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনের (পিবিআই) আদলে শিগগিরই এই ইউনিটের কার্যক্রম শুরু হবে বলে জানিয়েছে পুলিশ অধিদপ্তর।

বর্তমানে শুধুমাত্র ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ (ডিএমপি), সিআইডি ও র‌্যাবে ছোট পরিসরে সাইবার অপরাধ সংক্রান্ত কার্যক্রম চলছে। গ্রাম পর্যায়ে কোন ব্যবস্থা নেই। ঢাকার বাসিন্দারা সেবা নিতে পারলেও গ্রামের বাসিন্দারা এখনও বঞ্চিত রয়েছে। তাই সর্বত্র এই সেবা পৌঁছে দিতে পুলিশের ‘সাইবার ইউনিট’ এর হেড অফিস ঢাকায় এবং সাব অফিস থাকবে প্রতিটি মফস্বলে।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এবারই প্রথম সাইবার অপরাধ ঠেকাতে পূর্ণাঙ্গ একটি ইউনিট হচ্ছে। অপরাধ ঠেকাতে বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সাইবার ক্রাইম সার্ভিলেন্স ও পেট্রলিং কার্যক্রম চালাবে সাইবার পুলিশ। বিদ্বেষ ছড়ানো ও সাম্প্রদায়িক উসকানি বন্ধে কাজ করার পাশাপাশি তথ্যপ্রযুক্তি আইনে দায়েরকৃত মামলার তদন্তও করবে এই 'সাইবার ইউনিট'।

বিষয়ঃ বাংলাদেশ

Share This Article