দিনে করেন সবজি বিক্রি, রাতে দুর্ধর্ষ তারা ডাকাত

  বাংলাদেশের কথা ডেস্ক
  প্রকাশিতঃ বিকাল ০৩:৪০, মঙ্গলবার, ২১ ডিসেম্বর, ২০২১, ৬ পৌষ ১৪২৮

নিউজ ডেস্কঃ রাজধানী ঢাকাসহ আশপাশের এলাকায় দীর্ঘ দিন ধরে ডাকাতি করে আসা আন্তঃজেলা ডাকাত দলের ১০ সদস্যকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব-১। সোমবার (২০ ডিসেম্বর) রাতে নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জ থানার কাঞ্চন ব্রিজ এলাকা থেকে তাদের গ্রেফতার করা হয়।

গ্রেফতারের সময় তাদের কাছ থেকে দুটি বিদেশি পিস্তল, একটি ওয়ান শুটারগান, একটি শটগান ও একটি পাইপগান, দুইটি ম্যাগজিন, পাঁচ রাউন্ড গুলি ও নগদ ৩১ হাজার টাকা এবং দেশীয় অস্ত্র জব্দ করা হয়েছে।

গ্রেফতাররা হলেন হিটু মিয়া (৪০), ফরহাদ আলী (৫৮), লিটন শেখ (৩৮), রিপন মৃধা ওরফে জামাই রিপন (২৯), স্বপন মিয়া (২৭), জাকির ব্যাপারী (২৯), জলিল খাঁন (৪০), শ্রী লক্ষণ চন্দ্র দাস (২৬), শ্রী অজিত চন্দ্র সূত্রধর (২৭) ও ইখতিয়ার হোসেন (৪৭)।

র‍্যাব জানায়, গ্রেফতার হওয়া আসামিরা দিনে সবজি বিক্রি, মুদি দোকানি ও শ্রমিকের কাজ করলেও রাতে তারা হয়ে ওঠেন দুর্ধর্ষ ডাকাত।

মঙ্গলবার (২১ ডিসেম্বর) দুপুরে রাজধানীর কারওয়ান বাজারে র‌্যাব মিডিয়া সেন্টারে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানান র‌্যাব-১ এর অধিনায়ক লে. কর্নেল আব্দুল্লাহ আল মোমেন।

লে. কর্নেল আব্দুল্লাহ আল মোমেন বলেন, আন্তঃজেলা ডাকাত দলের সদস্যরা দিনে বিভিন্ন পেশায় (সবজি বিক্রি, মুদি দোকানি ও শ্রমিক) নিয়োজিত থাকলেও সন্ধ্যায় ভয়ংকর হয়ে ওঠেন। এই চক্রের সদস্যরা বিভিন্ন স্বর্ণের দোকান, শিল্পকারখানা এবং ব্যাংকে ডাকাতি করত। গত সোমবার রাতে ডাকাতির প্রস্তুতিকালে র‌্যাব-১ এর একটি দল গোপন সংবাদের ভিত্তিতে নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জে অভিযান চালায়। এসময় ডাকাতির উদ্দেশে মাইক্রোবাসে অবস্থান করা ১০ ডাকাতকে গ্রেফতার করা হয়।

তিনি বলেন, চক্রের সদস্যরা দেশের ভিন্ন ভিন্ন জেলায় বসবাস করে। ডাকাতির পূর্বে তারা পরিকল্পনা অনুযায়ী নির্ধারিত স্থানে একত্রিত হতো। ছদ্মবেশে ব্যাংক, স্বর্ণের দোকান, শিল্পকারখানার বাইরে অবস্থান করে ২-৩ জন ভেতরে প্রবেশ করে এবং মূল দলটি মাইক্রোবাসসহ সুবিধাজনক স্থানে অপেক্ষা করত। এই চক্রের সদস্যরা একে অপরের যোগসাজশে রাজধানী ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন জেলায় এখন পর্যন্ত ১১টি ডাকাতির ঘটনা ঘটিয়েছে। তাদের বিরুদ্ধে ঢাকার দক্ষিণ কেরানীগঞ্জ, কেরানীগঞ্জ মডেল ও সাভার থানা, ডিএমপির শাহআলী, মতিঝিল ও ডেমরা থানা, নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁও ও সিদ্ধিরগঞ্জ থানা, গাজীপুরের কালিয়াকৈর থানা, টাঙ্গাইলের মির্জাপুর থানা, মানিকগঞ্জের ঘিওর থানাসহ বিভিন্ন থানায় ডাকাতি মামলা রয়েছে।

সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে র‌্যাব-১ এর অধিনায়ক বলেন, এই ডাকাতদলের অন্যতম হোতা ফরহাদ হোসেন। এ চক্রের মধ্যে কেউ সবজি বিক্রেতা, কেউ দোকানদার ছিল। মূলত তারা ডাকাতি করেই জীবিকা নির্বাহ করত। আমরা যেসব দেশি-বিদেশি অস্ত্র উদ্ধার করেছি সেগুলো তারা ঢাকা থেকেই সংগ্রহ করেছে তারা। ফরহাদ ও হিটু মিয়ার কাছ থেকেই অস্ত্রগুলো পাওয়া গেছে। তারাই মূলত অস্ত্রের যোগানদাতা।

ডাকাতির বাইরে নাশকতার কোনো পরিকল্পনা ছিল কি না জানতে চাইলে র‌্যাব-১ এর অধিনায়ক বলেন, ডাকাতির বাইরে নাশকতার কোনো পরিকল্পনা আমরা পায়নি। তাদের প্রধান পেশা ডাকাতি করা। এর আগে তারা ১১টি ডাকাতি করেছে।

বিষয়ঃ র‌্যাব

Share This Article


রাষ্ট্রপতি বরাবর স্মারকলিপি দেবেন কোটা আন্দোলনকারীরা

ভুল বোঝাবুঝি মিটেছে, শিক্ষকদের সর্বজনীন পেনশন স্কিম আগামী বছর চালু হবে

তিন ক্রু নিয়ে রাশিয়ায় যাত্রীবাহী বিমান বিধ্বস্ত

বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষকদের সঙ্গে বৈঠকে ওবায়দুল কাদের

সংসদে আইন পাস না হওয়া পর্যন্ত রাজপথে থাকার ঘোষণা

চীন সফর নিয়ে রবিবার সংবাদ সম্মেলন করবেন প্রধানমন্ত্রী

যশোরে পৃথক সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ৩, আহত ৭

৪ বিভাগে ভারী বর্ষণের পূর্বাভাস

প্রশ্নপত্র ফাঁস: ৩ থেকে ৪শ’ জনকে চাকরি পেতে সহায়তা করেন খলিল

আইন লঙ্ঘন বরদাশত করবে না পুলিশ: ডিএমপি কমিশনার

ইন্টারনেটে ধীরগতি থাকতে পারে সারাদিন

যুদ্ধবিরতি ইস্যু: গোয়েন্দাপ্রধানের সঙ্গে মতানৈক্য নেতানিয়াহুর