পায়রা বিদ্যুৎ কেন্দ্র : সুশীলদের আশঙ্কা ভুল!

  বাংলাদেশের কথা ডেস্ক
  প্রকাশিতঃ দুপুর ০২:১৫, রবিবার, ২৯ মে, ২০২২, ১৫ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯

কয়লার ধোঁয়ায় ছেয়ে যাচছে আকাশ, দূষনে কালো হয়ে উঠছে সবুজ পরিবেশ, জীব-বৈচিত্র ধংস হয়ে এলাকা হচ্ছে জনমানবহীন। দেশের সুশীল সমাজের গবেষকরা কয়লা বিদ্যুৎ সম্পর্কে অন্তত এমন ধারনা আগেই দিয়েছিলেন।
কিন্তু না।এমনটি হচ্ছেনা।হবার সুযোগও নেই।

কারণ : … … 

 

বিশ্বের সর্বাধুনিক প্রডুক্তিতে নির্মিত এই পায়রা বিদ্যুৎ কেন্দ্রের মাধ্যমেই বাংলাদেশ ‘আল্ট্রা সুপার ক্রিটিক্যাল’ প্রযুক্তির ক্লাবে যুক্ত হয়েছে। এটি কোন সাধারণ কয়লা বিদ্যুৎ প্রকল্প নয়।

পায়রা বিদ্যুৎ কেন্দ্রের কয়লা আসছে ইন্দোনেশিয়া ও অস্ট্রেলিয়া থেকে। জাহাজের জেটি থেকেই কনভেয়ার বেল্টের মাধ্যমে চলে যাচ্ছে একেবারে চুল্লি পর্যন্ত। তাই মাঝখানে কয়লা ছড়ানোর সুযোগ নেই।  

কয়লা পোড়ানোর ফলে উৎপন্ন হয় ক্ষতিকর কার্বন-ডাই অক্সাইড,  সালফার-ডাই অক্সাইড, স্মগ ও নাইট্রোজেন ডাই অক্সাডের মতো বিষাক্ত ধোয়া। কিন্তু পয়রা বিদ্যুৎ কেন্দ্রে এসব ক্ষতিকর গ্যাসের ৯৯ শতাংশ ফিল্টার করা হচ্ছে। এসবের কোনটাই প্রকৃতিতে মিশছে না।

প্রায় ৭৫ তলা ভবনের সমান অত্যাধুনিক চুল্লিতে প্রায় ৯৯ শতাংশ ফ্লাই এ্যশ প্রতিরোধ করা সম্ভব। যে কারনে চুল্লি থেকে কোন ফ্লাই এ্যশ বের হচ্ছে না। তাই ধোঁয়া দেখাচ্ছে সাদা।  

কয়লা পুড়ে যেই বটম এ্যশ হচ্ছে সেটি যেন বাতাসে যুক্ত না হয় তার জন্য রয়েছে ওয়াটার ট্রিটমেন্টের ব্যবস্থা। এটি পরিচালনায় প্রতিদিন ২৯ কোটি লিটার পানি প্রয়োজন হয়।

প্রতিদিন ১৩ হাজার মেট্রিক টন কয়লা থেকে ১৮০ টন ছাই বের হচ্ছে। চুল্লি থেকে এই ছাই ডাম্পিং এড়িয়াতে যাচ্ছে বিশাল পাইপের মাধ্যমে। ফলে এই ছাইও ছড়িয়ে পড়ছেনা।

৭৬ একরের ডাম্পিং এরিয়াতে  অন্তত ২৫ বছরের নির্গত ছাই বৈজ্ঞানিকভাবে সংরক্ষন করা সম্ভব। তবে দেশীয় একটি কোম্পানির কাছে এই ছাই ইতিমধ্যেই বিক্রি করা হচ্ছে।    

আধুনিক জেনারেটর, টারবাইন প্যানেল, বয়লার ও নিয়ন্ত্রণ ব্যবস্থার দিক থেকে এটি বিশ্বমানের। তাই এর চেয়ে পরিবেশবান্ধব কয়লা বিদ্যুৎ কেন্দ্র বর্তমান প্রযুক্তিতে আর হয় না বলে জানিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা।

শুধু তাই নয়, এটি নির্মানে নির্ধারিত বাজেটের চেয়ে ৮শ কোটি টাকা কম খরচ হয়েছে। নির্মানকাজ শেষও হয়েছে নির্ধারিত সময়ের আগেই।  

এই প্রল্পের দুটো ইউনিট উৎপাদনে সক্ষম হলেও সঞ্চালন লাইন না থাকায় আপাতত এক তৃতীয়াংশ বিদ্যুৎ উৎপাদন করে শুধু দেয়া হচ্ছে দক্ষিনের বেশ কয়েকটি জেলায়।  চলতি বছরের শেষ নাগাদ পায়রার বিদ্যুৎ পাবে সারাদেশ।

Share This Article


নির্বাচন নিয়ে কোনো শঙ্কা নেই: অশোক কুমার দেবনাথ

মোটরযানে হুটার-হাইড্রোলিক হর্ন ব্যবহার করলেই ব্যবস্থা

সৌদিতে চলতি বছরে প্রথম বাংলাদেশি হজযাত্রীর মৃত্যু

শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস পালন

৮০ কিমি বেগে ঝড়ের আভাস, ২ নম্বর হুঁশিয়ারি সংকেত

আবারও হিট অ্যালার্ট জারি

আমি হাওয়া ভবনের মতো কোনো ‘খাওয়া ভবন’ করিনি: প্রধানমন্ত্রী

ঋণখেলাপি বিএনপির সময় বেশি ছিল: আইনমন্ত্রী

১০ হাজারের বেশি বাংলাদেশিকে ফেরত পাঠাবে যুক্তরাজ্য

গণভবনে ফুলেল শুভেচ্ছা সিক্ত শেখ হাসিনা

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দেশে ফিরে আসা

ফিলিস্তিনি আহতদের চিকিৎসায় আন্তর্জাতিক সংস্থাগুলোর ভূমিকা চাইলেন প্রধানমন্ত্রী