সন্ধ্যা ০৬:৫৪, শুক্রবার, ১২ আগস্ট, ২০২২, ২৮ শ্রাবণ

অর্থপাচারে জড়িত ২৯ ব্যক্তি ও ১৪ প্রতিষ্ঠানের তালিকা যাচ্ছে হাইকোর্টে

দুদকের তালিকা যাচ্ছে হাইকোর্টে
দুদকের তালিকা যাচ্ছে হাইকোর্টে

নিজস্ব প্রতিবেদক: অর্থপাচার ও বিভিন্ন ধরনের আর্থিক অনিয়মের অভিযোগে ২৯ ব্যক্তি ও ১৪ প্রতিষ্ঠানের তালিকা হাইকোর্টে জমা দেওয়ার জন্য প্রস্তুত করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন-দুদক। ৫ ডিসেম্বর (রবিবার) এ তালিকা দুদক জমা দেবে।

৪ ডিসেম্বর (শনিবার) সন্ধ্যায় দুদকের আইনজীবী খুরশিদ আলম খান বিষয়টি গণমাধ্যমকে নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, আমরা সব প্রস্তুত করে রেখেছি। আগামীকাল কোর্ট খুললে সংশ্লিষ্ট শাখায় অভিযুক্ত ব্যক্তিদের তালিকা জমা দেব।

অভিযুক্ত ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানগুলোর বিষয়ে প্রশ্ন করলে এই আইনজীবী বলেন, এখন কারো নাম প্রকাশ করবো না। কাল কোর্টে জমা দিলে তালিকা পেয়ে যাবেন।

আলোচিত ব্যবসায়ী মুসা বিন শমসের, বিএনপি নেতা আব্দুল আওয়াল মিন্টু ও শিল্পপতি ফয়সাল আহমেদ চৌধুরীর নাম তালিকায় রয়েছে বলে জানা গেছে।

অভিযুক্তদের দেশত্যাগে নিষেধাজ্ঞার কোনো বিষয় আছে কী না জানতে চাইলে এই আইনজীবী তা জানাতে অপারগতা প্র্রকাশ করেন।

অভিযোগ আছে, আমদানি-রপ্তানিতে আন্ডার ভয়েস এবং ওভার ভয়েস, হুন্ডিসহ নানান পদ্ধতিতে প্রতি বছর দেশ থেকে শত শত কোটি টাকা বিদেশে পাচার হয়। 

এ নিয়ে গত ২৭ নভেম্বর সংসদে প্রশ্নের মুখে পড়ে অর্থমন্ত্রী আ হ ম মোস্তফা কামাল অর্থপাচারকারীদের তালিকা চান বিরোধী দলীয় সংসদ সদস্যদের কাছে। 

এ সময় মন্ত্রী বলেন, ‘আমি অর্থ পাচার করি না। আমি বিশ্বাস করি আপনারাও করেন না। আপনারা যদি একটি তালিকা না দেন তাহলে আমি কী করে জানব কারা অর্থ পাচার করছেন!’

অর্থমন্ত্রীর এমন বক্তব্যের এক সপ্তাহ না পেরুতেই দুদকের তালিকা প্রস্তুতের খবর গণমাধ্যমে আসলো। 

এর আগে গত ৭ জুনও একইরকম কথা বলেন অর্থমন্ত্রী। কারা অর্থপাচার করছে তাদের তথ্য সরকারের কাছে নেই জানিয়ে তিনি এ সংক্রান্ত তথ্য কারও কাছে থাকলে তা দিতে অনুরোধ জানান।

সংসদে বিরোধী সংসদ সদস্যদের উদ্দেশে তিনি বলেন, ‘কারা দেশের টাকা নিয়ে যায়, সেই তালিকা আমার কাছে নেই।পাচারকারীদের নামগুলো আমাদেরকে দেন। তাদের ধরা আমাদের জন্য সহজ হবে।

অর্থ পাচার ঠেকাতে সরকার সক্রিয় রয়েছে দাবি করে অর্থমন্ত্রী বলেন, এখনও পাচারকারীদের অনেকেই জেলে আছে। বিচার হচ্ছে। আগে যেমন ঢালাওভাবে চলে যেত, এখন তেমন নেই।

তবে ২০২০ সালের নভেম্বর পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন এক অনুষ্ঠানে বলেছিলেন, বাংলাদেশ থেকে কানাডায় টাকা পাচারের যে গুঞ্জন আছে, তার কিছুটা সত্যতা তিনি পেয়েছেন। আর প্রাথমিক তথ্য অনুযায়ী টাকা পাচারের ক্ষেত্রে সরকারি কর্মচারীদের সংখ্যাই বেশি। টাকা পাচারের তথ্য পাওয়া ২৮টি ঘটনার মধ্যে সরকারি কর্মচারীই বেশি।

পররাষ্ট্রমন্ত্রীর ভাষায়, ‘প্রাথমিকভাবে কিছু সত্যতা পেয়েছি। মনে করেছিলাম রাজনীতিবিদদের সংখ্যা বেশি হবে। কিন্তু দেখা গেল, রাজনীতিবিদ চারজন। সরকারি কর্মচারীর সংখ্যা বেশি। এ ছাড়া কিছু ব্যবসায়ী আছেন।’

দুদকের প্রস্ততকৃত তালিকার খবরে রাজনৈতিক ও ব্যবসায়িক অঙ্গণে আলোচনা চলছে। কার কার নাম রয়েছে সেই তালিকা তা জানার জন্য গণমাধ্যম কর্মীরাও আগ্রহ নিয়ে অপেক্ষা করছে।  

Share This Article


সব দলকে এক হয়ে সরকার হটাতে আন্দোলন করতে হবে: মান্না

রুশ বিমান বহরের ক্ষমতা কমেছে কৃষ্ণ সাগরে

নির্বাচন সামনে রেখে সরকার বিদেশি চাপে আছে: ফখরুল

ট্রাম্পের বাড়িতে হানা দিলো এফবিআই!

রাশিয়ানদের আস্থা বেড়েছে পুতিনের ওপর

অন্য দেশের তুলনায় বাংলাদেশের মানুষ সুখে আছে: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে সাপ্তাহিক ছুটি দুদিন করার চিন্তা

ইরানে ড্রোন প্রশিক্ষণ নিচ্ছে রাশিয়া: যুক্তরাষ্ট্র

ইউক্রেন ছাড়ল গমবাহী প্রথম জাহাজ

বিশ্ববাজারে জনসন বেবি পাউডার বিক্রি বন্ধের ঘোষণা

ওয়েবিলের নামে বেশি ভাড়া নিলে রুট পারমিট বাতিল

‘যৌবনের মূল্যায়ন কর বার্ধক্যের আগে’

শ্রীলংকায় ১ কোটির বেশি রুপি দান করল অস্ট্রেলিয়ার ক্রিকেটাররা

হেরে গেলেও একে অন্যের পাশে থাকার ঘোষণা

শিল্পাঞ্চল এলাকায় সাপ্তাহিক ছুটি নির্ধারণ