সকাল ০৭:৪১, রবিবার, ২৬ জুন, ২০২২, ১২ আষাঢ়

যুদ্ধ হলে ৭১’র মতো পরিস্থিতি তৈরি করবে ভারতীয় বাহিনী : জেনারেল নারাভানে

আন্তর্জাতিক ডেস্কঃ ভারতীয় সেনাবাহিনীর প্রধান জেনারেল মনোজ মুকন্দ নারাভানে হিন্দি টিভি চ্যানেল ‘আজতক’-এর এক বিশেষ অনুষ্ঠানে বলেন, ১৯৭১ সালের যুদ্ধের সময় আমার বয়স ছিল মাত্র ১১ বছর। সে কারণে সেসময়ে আমি যুদ্ধে ছিলাম না। আমি কারো সাথে মারামারি করি না। কিন্তু ভবিষ্যতে যুদ্ধ হলে ভারতের তিন বাহিনী একাত্তরের মতো হাল করে ছাড়বে।

 

 জেনারেল নারাভানে এজেন্ডা আজতকের ‘সবচেয়ে বড় বিজয়ের ৫০ বছর’ অধিবেশনে বক্তব্য রাখছিলেন। এই অধিবেশনটি ১৯৭১ সালে পাকিস্তানের বিরুদ্ধে অর্জিত বিজয়ের উপর রাখা হয়েছিল। ১৯৭১ সালের ৩ ডিসেম্বর ভারতীয় বাহিনী পাকিস্তানের কাছ থেকে জয়লাভ করেছিল। বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধকে এখনো ভারতীয় মিডিয়া পাকিস্তানের বিরুদ্ধে জয়লাভ হিসেবে দেখছে।

জেনারেল নারাভানে বলেন, ‘একাত্তরে আমাদের তিন বাহিনী একসঙ্গে বিজয় অর্জন করেছিল। আমরা সবাই একসাথে ছিলাম। সম্পূর্ণ সমন্বয় ছিল, সে কারণেই আমরা এই দুর্দান্ত জয় পেয়েছিলাম। ভবিষ্যতে যদি কখনও যুদ্ধ হয়, তবে তিনটি বাহিনীই একত্রে একইরকম সাফল্য অর্জন করবে। ১৯৭১ সাল থেকে ৫০ বছর হয়ে গেছে। এই কয়েক বছরে অনেক পরিবর্তন হয়েছে। অতীতের যুদ্ধ আর এখনকার যুদ্ধের মধ্যে পার্থক্য আছে। এখন যুদ্ধটা টেস্ট ম্যাচের মতো নয়, হয়ে গেছে টি- টোয়েন্টি। সে সময় আগে থেকে প্রস্তুতি নেওয়ার সুযোগ ছিল। কিন্তু এখন আর প্রস্তুতির সুযোগ থাকবে না। আমাদের সবসময় প্রস্তুত থাকতে হবে।’

জেনারেল নারাভানে বলেন, ১৯৭১ সালের যুদ্ধের সময় আমার বাবা দিল্লিতে কর্মরত ছিলেন। আমরা বসন্ত বিহারে থাকতাম। আমাদের বলা হয়েছিল যুদ্ধের জন্য প্রস্তুত হতে। আমরা জানালায় কালো কাগজ রেখেছিলাম। সাইরেন বাজলে তিনি প্রয়োজনীয় নির্দেশ পালন করতেন। তখন ভাবিনি যে আমি সেনাপ্রধান হব।

জেনারেল নারাভানে বলেন, ১৯৭১ সালের ৯ বছর পর আমি সেনাবাহিনীতে যোগদান করি। সেকেন্ড লেফটেন্যান্ট হই। নিয়োগের পরে, সৈনিক এবং তরুণ অফিসারদের পড়ার জন্য একটি ডাইজেস্ট দেওয়া হয়। আমিও পড়েছি। ১৯৭১ সালের যুদ্ধ নিয়ে অনেক পাতা ছিল এতে। একটা বিষয় পরিষ্কার হয়ে গেল যে, একাত্তরের মার্চ-এপ্রিল থেকেই সবাই জানত যে যুদ্ধ হতে যাচ্ছে। প্রস্তুতি কেমন চলছে? প্রশিক্ষণের উপর জোর দেওয়া হয়েছিল। ওই ডাইজেস্টে সব লেখা থাকত। ওই পাতাগুলো থেকে মনে হচ্ছিল এখন কী ঘটতে যাচ্ছে। সেই লড়াইয়ে অংশ নেওয়া অফিসারদের নাম ছিল। তাদের অনেক গল্প ছিল। যখন আমি এটি পড়ি, তখন আমার মনে হতো আমি সেই লড়াইয়ের অংশ ছিলাম।

তিনি বলেন, আমাদের কৌশল ও পদ্ধতিতে পরিবর্তন আনতে হবে। গত ৫০ বছরে প্রযুক্তি অনেক এগিয়েছে। আমাদের প্রযুক্তি ব্যবহার করতে হবে যাতে আমরা আরও কার্যকর হতে পারি বলেও মন্তব্য করেন জেনারেল মনোজ মুকন্দ নারাভানে।

Share This Article


২৮ জুন থেকে প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ছুটি

আগামী প্রজন্মের সুরক্ষায় মাদকের বিরুদ্ধে সামাজিক আন্দোলন গড়ে তুলতে হবে

বেলারুশ ভূখণ্ড থেকে ইউক্রেনে ব্যাপক বোমাবর্ষণ: সেনাবাহিনী

পদ্মা সেতু উদ্বোধনের পর হাজারো জনতা হেঁটে বেড়িয়েছে

আগামীকাল থেকে রাজধানীর ৫ স্থানে দেওয়া হবে কলেরা টিকা

পদ্মা সেতু উপ অঞ্চলিক সংযোগ বাড়াবে: দোরাইস্বামী

করোনা পজিটিভ হওয়ায় গৌরবময় মাহেন্দ্রক্ষণের সাক্ষী হতে পারলেন না তিন এমপি

তিনিও একজন মা

প্রধানমন্ত্রীকে পা ছুঁয়ে সালাম করলেন আবুল হোসেন

মুক্তিযুদ্ধ না দেখলেও আমরা পদ্মা সেতু দেখেছি: শাওন

পদ্মা সেতুর উদ্বোধন উপলক্ষে জাতীয় মসজিদে দোয়া

টানা ১৯ দিন বন্ধ থাকবে প্রাথমিক বিদ্যালয়

গুগল ম্যাপেও স্বপ্নের পদ্মা সেতু

পেঁয়াজের দাম কেজিতে বাড়ল ২০ টাকা

নিঃস্ব আমি রিক্ত আমি দেবার কিছু নেই, আছে শুধু ভালোবাসা দিয়ে গেলাম তাই