বিকাল ০৫:৩৮, শুক্রবার, ১২ আগস্ট, ২০২২, ২৮ শ্রাবণ

পেটে কাচি রেখে সেলাই করা চিকিৎসকদের খুঁজে পায়নি তদন্ত কমিটি!

ফাইল ফটো
ফাইল ফটো

ফরিদপুর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে এক তরুণীর পেটে অস্ত্রোপচারের পরে পেটের মধ্যেই কাচি রেখে সেলাই করা এবং ৬৪৩ দিন পর বের করার ঘটনার তদন্তে গঠিত কমিটি প্রতিবেদন দিয়েছে।

 

প্রতিবেদনে এ ঘটনার জন্য কে দায়ী তা সুনির্দিষ্টভাবে চিহ্নিত করা হয়নি কিংবা কারও বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণের সুপারিশও করা হয়নি। বিদেশি কয়েকটি নিবন্ধের উদ্ধৃতি দিয়ে বলা হয়েছে, বিভিন্ন দেশে এ জাতীয় ঘটনা আগেও ঘটেছে। ওই প্রতিবেদনে অস্ত্রোপচারের সময় অধিক সতর্কতা অবলম্বনের পরামর্শ দেওয়া হয়েছে।

সোমবার (২১ ডিসেম্বর) ফরিদপুর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পরিচালক সাইফুর রহমানের কাছে তদন্ত প্রতিবেদন তুলে দেয় গঠিত তিন সদস্যের তদন্ত কমিটি।

তদন্ত প্রতিবেদনে চিকিৎসকদের বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা গ্রহণের সুপারিশ না থাকা এবং চিকিৎসকদের দায়ী না করায় তোলপাড় শুরু হয়েছে। এ প্রতিবেদন প্রত্যাখ্যান করেছেন ওই তরুণীর পরিবার।

এদিকে, তদন্ত কমিটির রিপোর্টটিতে চিকিৎসকদের বাঁচানো হয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন নাগরিক সমাজের প্রতিনিধিরা। তারা তদন্ত কমিটির সঙ্গে যারা জড়িত ছিলেন তাদের বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা গ্রহণের কথা বলেছেন।

গঠিত তদন্ত কমিটির সভাপতি ছিলেন সার্জারি বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক কামরুল হাসান। অপর দুই সদস্যের মধ্যে ছিলেন গাইনি বিভাগের অধ্যাপক কানিজ ফাতেমা ও সার্জারি বিভাগের মো. কামরুজ্জামান।

ফরিদপুর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পরিচালক সাইফুর রহমান বলেন, তদন্ত কমিটি কার গাফিলতিতে পেটে কাচি রাখার ঘটনাটি ঘটেছে তা শনাক্ত করতে পারেনি। পাশাপাশি ওই অস্ত্রোপচারের সঙ্গে যুক্ত কারও ব্যাপারে কোনো শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণেরও সুপারিশ করেনি।

প্রতিবেদনে বলা হয়, গত ২০২০ সালের ৩ মার্চ সার্জারি ইউনিট-দুই এর দায়িত্বে নিয়োজিত সহযোগী অধ্যাপক মোল্লা সরফউদ্দিনের অধীনে এ অস্ত্রোপচারের সময় আরও তিন থেকে চারজন চিকিৎসক অংশ নেন।

পরিচালক বলেন, ওই প্রতিবেদনে বিশ্বের বিভিন্ন জার্নালের উদ্বৃতি দিয়ে বলা হয়েছে এ জাতীয় ঘটনা রেয়ার নয়। এর আগেও বিভিন্ন দেশে অস্ত্রোপচারের সময় এ জাতীয় ঘটনা ঘটেছে।

প্রসঙ্গত মনিরা খাতুন (১৯) গোপালগঞ্জ জেলার মুকসুদপুর উপজেলার বাঁশবাড়িয়া ইউনিয়নের ঝুটি গ্রামের বাসিন্দা খাইরুল মিয়ার মেয়ে। ফরিদপুর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল কলেজে গত ২০২০ সালের ৩ মার্চ ওই মেডিকেল হাসপাতালের সার্জারি বিভাগ ইউনিট টু-তে এ অস্ত্রোপচার করা হয়। ওই সময় একটি কাচি মনিরার পেটে রেখে সেলাই করে দেন চিকিৎসক। ওই ঘটনার পৌনে দুইবছর পর গত ১১ ডিসেম্বর হাসপাতালেই পুনরায় অস্ত্রোপচার করে তরুণীর  পেট থেকে কাচিটি বের করা হয়।

Share This Article


ওয়েবিলের নামে বেশি ভাড়া নিলে রুট পারমিট বাতিল

‘যৌবনের মূল্যায়ন কর বার্ধক্যের আগে’

শ্রীলংকায় ১ কোটির বেশি রুপি দান করল অস্ট্রেলিয়ার ক্রিকেটাররা

হেরে গেলেও একে অন্যের পাশে থাকার ঘোষণা

শিল্পাঞ্চল এলাকায় সাপ্তাহিক ছুটি নির্ধারণ

বেট উইনারের সঙ্গে চুক্তি বাতিল করবেন সাকিব

বনানীতে সড়ক দুর্ঘটনায় অটোরিকশাচালক নিহত

কোভিডঃ বিশ্বে ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু কমলেও বেড়েছে শনাক্ত

নদীবন্দরে দুই নম্বর নৌ হুঁশিয়ারি সংকেত

ফতুল্লায় ২১ যাত্রীসহ ট্রলারডুবি

আন্তর্জাতিক যুব দিবস আজ

Video does not show 2022 fuel protests in Bangladesh, it dates to 2013

বিপিসির কাজ কি? তারা কেনো এফডিআর করে?

তিন দশক পর সেই সন্তানের অনুপ্রেরণায় ধর্ষকদের বিচার চেয়ে আদালতে মা

করোনায় ‘গুরুতর অসুস্থ’ ছিলেন কিম জং উন