বিষণ্ণতা ও দুশ্চিন্তা থেকে মুক্তি পেতে গড়ে তুলুন এই ৭ অভ্যাস

  বাংলাদেশের কথা ডেস্ক
  প্রকাশিতঃ সকাল ১১:১৫, শনিবার, ১ জুন, ২০২৪, ১৮ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১

দীর্ঘদিন বিষণ্নতা আর দুশ্চিন্তার সঙ্গে লড়াই করেছেন। ব্রেন ফগ বা মস্তিষ্ক স্বাভাবিকভাবে কাজ না করা, মনোযোগ ধরে রাখতে না পারা, কাজের ‘ফোকাস’ হারিয়ে ফেলা—এ রকম নানা সমস্যায় ভুগেছেন। এই সাত অভ্যাস তাকে আবার স্বাভাবিক জীবনে ফিরতে সাহায্য করেছে।

বিষণ্ণতা ও দুশ্চিন্তা থেকে মুক্তি পেতে এই সাত অভ্যাস গড়ে তুলতে পারেন। জেনে নিন অভ্যাস সমূহ-
১. নিয়মিত ধ্যান করা। ধ্যান চাপ কমায়, মনে প্রশান্তি আনে আর মানসিকভাবে সচেতন বৃদ্ধি করে।

২. নিজেকে সৃজনশীল কাজে যুক্ত রাখার কোনো বিকল্প নেই। নিজেকে ব্যস্ত রাখুন। যখন আপনি কেবল ‘কনজিউম’ করতে থাকেন, তখনই দুশ্চিন্তা জড়ো হতে থাকে। যখন আপনি কিছু তৈরি করেন, তখন দুশ্চিন্তা আপনাকে ছেড়ে যায়।

৩. মাঝে মাঝে সবকিছু থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে নিজেকে নিজের সঙ্গে জুড়ুন। সপ্তাহে অন্তত একবার বা দুবার এমন কিছু সময় রাখুন, যে সময়ে আপনি কিছুই দেখবেন না, শুনবেন না, পড়বেন না, কেবল ভাববেন। নিজেকে মাঝেমধ্যে এভাবে ‘বিযুক্ত’ করলে যেকোনো কিছু অল্প সময়ে অনুধাবন করা সহজ হয়।

৪. ব্যায়াম করুন। আশপাশের পার্কে কোনো একটা গ্রুপে যোগ দিন। সকালের স্বাস্থ্যকর হাওয়া খাওয়ার পাশাপাশি অন্যদের সঙ্গে সামাজিকীকরণটাও হবে। মানুষের সঙ্গে মিলেমিশে থাকা খুবই জরুরি। যখনই আপনার বিষণ্ন লাগবে, কোনো একজন কাছের মানুষের সঙ্গে গল্প করুন। দেখবেন, অনেকটাই হালকা লাগছে।

অন্যের ভালোমন্দের সঙ্গে মিলেমিশে থাকলে নিজের হতাশা, বিষণ্নতা চেপে ধরার সুযোগ পায় না। তা ছাড়া, শারীরিক পরিশ্রম করলে হ্যাপি হরমোন নিঃসৃত হয়। ফলে বিষণ্নতা উবে যায়।

৫. প্রতিদিন একই সময়ে ঘুমাতে যান। একই সময়ে উঠুন। বিছানায় ফোন নিয়ে যাবেন না। সন্ধ্যের পর কোনো ক্যাফেইন নেবেন না। বেডরুম যেন ঠান্ডা আর অন্ধকারাচ্ছন্ন হয়। ঘুমানোর তিন ঘণ্টার ভেতর কোনো ভারী খাবার খাবেন না।

৬. আপনাকে অবশ্যই মানুষের সঙ্গে কথা বলতে হবে। আমাদের নিজেদের মাথার ভেতরকার দুশ্চিন্তা আমাদের বাস্তবতা থেকে বেশি কষ্ট দেয়। তাই অন্যের সঙ্গে আপনার সমস্যা নিয়ে কথা বললে সেটা আমাদের একটা ইতিবাচক দৃষ্টিভঙ্গি দেয়। তবে অবশ্যই সেই মানুষটা সে রকম নির্ভরশীল হতে হবে। আমার ক্ষেত্রে সেই মানুষটা ছিল থেরাপিস্ট। আপনার ক্ষেত্রে পরিবারের কোনো সদস্য বা বন্ধু অথবা যে কেউ হতে পারে। যাকে আপনি ভরসা করতে পারেন।

৭. প্রতিদিন নেতিবাচক হাজারো চিন্তা আপনার মাথায় উঁকি দেবে। আপনাকে সেগুলো ঝেঁটিয়ে বিদায় করতে হবে। নেতিবাচকতাকে মাথার ভেতর বাসা বাঁধতে দেবেন না। এক দিনে এটা হবে না। ওপরের ছয়টা বিষয় আপনি যদি মেনে চলেন, তাহলে নেতিবাচকতাকে দূর করার মতো মানসিক অবস্থায় আপনি পৌঁছে যাবেন। তবে কোনোকিছু থেকেই তাৎক্ষণিকভাবে কোনো ফলাফল আশা করবেন না। দুর্ঘটনা হুট করে ঘটে! অপর দিকে, ভালো কিছু ঘটতে সময় লাগে।

বিষয়ঃ গবেষণা

Share This Article

এ যুগের রাজাকারদের পরিণতি ওই যুগের রাজাকারদের মতই হবে : শিক্ষামন্ত্রী

যাঁরা ‘আমি রাজাকার’ বলেন, তাঁদের শেষ দেখে ছাড়বে ছাত্রলীগ

কোটা আন্দোলনকারীদের হটাতে অ্যাকশনে পুলিশ

আর্জেন্টিনার ইতিহাস গড়া জয়, কোপার শিরোপা মেসিদের

পারলে সশরীরের ঢাকায় যেতাম, আন্দোলন নিয়ে কবীর সুমন

ঢাবি হলের কক্ষে কক্ষে কোটাব্যবস্থা নিয়ে প্রচারপত্র দিলেন ছাত্রলীগের শীর্ষ নেতারা

শিক্ষার্থীরা বঙ্গবন্ধুকন্যাকে কটূক্তি করেনি, কেউ শিখিয়ে দিয়েছে

প্রাণহানির প্রতিটি ঘটনার বিচার বিভাগীয় তদন্ত হবে : প্রধানমন্ত্রী

জামিন পেলেন সেই সেই মিল্টন সমাদ্দার

ছাত্রলীগের উপর বিনা উসকানিতে হামলা চালানো হয়েছে : ওবায়দুল কাদের