মহামারীর বছরে বেড়েছে অভিবাসন

  বাংলাদেশের কথা ডেস্ক
  প্রকাশিতঃ সকাল ১০:৪৬, শুক্রবার, ৩১ ডিসেম্বর, ২০২১, ১৬ পৌষ ১৪২৮

নিউজ ডেস্ক :  মহামারী করোনার প্রকোপে ২০২০ সালে অভিবাসন অনেকাংশে কমে গেলেও ২০২১ সালে আবার বেড়েছে বলে জানিয়েছে রিফিউজি অ্যান্ড মাইগ্রেটরি মুভমেন্ট রিসার্চ ইউনিট (রামরু)। 

অভিবাসীদের নিয়ে কাজ করা বেসরকারি এ প্রতিষ্ঠানের সর্বশেষ নভেম্বরের হিসাব বলছে, আগের বছরের তুলনায় চলতি বছর শ্রম অভিবাসন দেড়গুণেরও বেশি বেড়েছে। ২০২০ সালে যেখানে কর্মের জন্য ২ লাখ ১৭ হাজার ৬৯৯ বাংলাদেশি বিদেশে গিয়েছেন, সেখানে চলতি বছর নভেম্বর পর্যন্ত গিয়েছেন ৪ লাখ ৮৫ হাজার ৮৯৩ জন। এই ধারা অব্যাহত থাকলে বছর শেষে অভিবাসন প্রায় দ্বিগুণ হবে বলে মনে করছে রামরু।

গতকাল রাজধানীর প্রেসক্লাবে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানানো হয়। ‘বাংলাদেশ থেকে শ্রম অভিবাসনের গতি-প্রকৃতি ২০২১ : সাফল্য ও চ্যালেঞ্জ’ শীর্ষক এ সংবাদ সম্মেলনে মূল প্রতিবেদন তুলে ধরেন রামরুর চেয়ারম্যান অধ্যাপক তাসনীম সিদ্দিকী।

প্রতিবেদনে বলা হয়, ২০২০ সালের মার্চ থেকে বিশ্ব সবচেয়ে বড় স্বাস্থ্য সংকট, কোভিড ১৯-এর মধ্য দিয়ে গেছে। সমাজের সব ক্ষেত্র এবং প্রায় সব দেশের অর্থনীতি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। আন্তর্জাতিক শ্রম অভিবাসনও ব্যাপকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়। বাংলাদেশেও এর প্রতিফলন ঘটে। ২০২০ সালে ২ লাখ ১৭ হাজার ৬৯৯ বাংলাদেশি কর্মী কাজের জন্য বিদেশে যান। তাদের মধ্যে ১ লাখ ৮১ হাজার ২ হাজার ১৮১ জন কর্মী ২০২০ সালের জানুয়ারি থেকে মার্চের মাঝে অভিবাসিত হন। লকডাউনের কারণে বাংলাদেশ থেকে অভিবাসন ২০২০ সালে এপ্রিল থেকে জুন পর্যন্ত স্থবির হয়ে পড়ে। ২০২০ সালের জুলাই থেকে ডিসেম্বর পর্যন্ত মাত্র ৩৬ হাজার ৪১৩ জন বিদেশে কর্মসংস্থানের সুযোগ হয়। ২০২০ সালে সামগ্রিকভাবে অভিবাসনের প্রবাহ আগের বছরের তুলনায় ৬৯ শতাংশ কমে গিয়েছিল। ২০১৯ সালে অভিবাসিত কর্মীর সংখ্যা ছিল ৭ লাখ ১৫৯ জন।

২০২১ সালের নভেম্বর পর্যন্ত মোট ৪ লাখ ৮৫ হাজার ৮৯৩ বাংলাদেশি কর্মের উদ্দেশ্যে বিশ্বের বিভিন্ন দেশে গেছেন। এ ধারা অব্যাহত থাকলে আগের বছরের (২০২০) তুলনায় ২০২১ সালে অভিবাসন বাড়বে দ্বিগুণ।

প্রতিবেদনে আরও বলা হয়, ২০০৩ সাল পর্যন্ত বাংলাদেশ থেকে অদক্ষ নারী শ্রমিকদের অভিবাসনের ওপর নিষেধাজ্ঞা ছিল। ফলে নারী অভিবাসী অনুপাত ছিল মোট অভিবাসীর এক শতাংশেরও কম। নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারের পর থেকে নারী অভিবাসনের হার উল্লেখযোগ্য হারে বেড়েছে। ২০১৬ থেকে ২০১৯ সাল পর্যন্ত এক লাখেরও বেশি নারীশ্রমিক বাংলাদেশ থেকে কাজের জন্য অভিবাসিত হয়েছে। ২০২১ সালের জানুয়ারি থেকে নভেম্বর পর্যন্ত ৬৮ হাজার ৫৭৯ জন নারীশ্রমিক কাজের জন্য বিদেশে গেছেন। ২০২০ সালের সঙ্গে তুলনা করলে দেখা যায় নারী অভিবাসনের সংখ্যা ২০২১ সালে প্রায় দ্বিগুণ বৃদ্ধি পাবে। ২০২০ সালে ছিল ২১ হাজার ৯৩৪। নিয়মিত বছরের (২০১৯) চিত্রের সঙ্গে তুলনা করলে নারী অভিবাসন প্রকৃতপক্ষে প্রায় ৪০ শতাংশ হ্রাস পাবে।

২০২১ সালের নভেম্বর পর্যন্ত যারা বিদেশে কাজে যোগদান করেন এর মধ্যে বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় শ্রমবাজার সৌদি আরবেই গেছেন ৩ লাখ ৭০ হাজার ১৫ জন। ২০২১-এর ফেরত আসা অভিবাসীর সঠিক তথ্য এখনো নেই।

প্রতিবেদনে আরও বলা হয়, বিএমইটি ডেটাবেজে যদিও ১০০টিরও বেশি দেশের নাম গন্তব্য দেশ হিসেবে তালিকাভুক্ত করা হয়েছে, তবে অভিবাসন মূলত অল্প কিছু দেশেই বেশি। সৌদি আরব, ওমান, সিঙ্গাপুর, কাতার, মালয়েশিয়া, বাহরাইন ইত্যাদি দেশে কর্মীদের সংখ্যা বেশি। কোভিড-১৯ অতিমারী চলাকালীন সৌদি আরব সর্বাধিক সংখ্যক পুরুষ এবং নারী অভিবাসী গ্রহণ করেছে। এর পরের দেশটি হলো ওমান। মোট অভিবাসীর প্রায় ৯৪ শতাংশ (৪১০,১০২) কর্মী এই দুটি দেশে অভিবাসন করেছে। অন্য গ্রহণকারী দেশগুলোর মধ্যে রয়েছে সিঙ্গাপুর (২১,৩৩৯ কর্মী, প্রায় ৪ শতাংশ, তৃতীয় বৃহত্তম), সংযুক্ত আরব আমিরাত (১৪,২৭৬ কর্মী, প্রায় ৩ শতাংশ, চতুর্থ বৃহত্তম), জর্ডান (১১,৮৪৫ কর্মী, প্রায় ২ শতাংশ, পঞ্চম বৃহত্তম), কাতার (৯,৭২৮ কর্মী, ২ শতাংশ, ষষ্ঠ বৃহত্তম)। বাংলাদেশি অভিবাসীদের ক্ষেত্রে মালয়েশিয়া একটি গুরুত্বপূর্ণ গন্তব্য দেশ হলেও ২০২০ এবং ২০২১ সালে এই দেশে খুব কমই অভিবাসন ঘটেছিল। অতিমারী চলাকালীন সৌদি বাজার চালু না থাকলে বাংলাদেশের শ্রমবাজার বড় ধরনের বিপর্যয়ের সম্মুখীন হতো।

রামরু জানায়, অভিবাসনের অর্ধেক (৫০ শতাংশ) হয় দেশের ১০টি জেলা থেকে। ২০২১ সালে কুমিল্লা জেলা থেকে সর্বাধিক সংখ্যক আন্তর্জাতিক অভিবাসন হয়েছে (১১ দশমিক ৫৬ শতাংশ)। ব্রাহ্মণবাড়িয়া থেকে হয় আট শতাংশ। এর পরে রয়েছে চাঁদপুর (৪ দশমিক ৫ শতাংশ)। এ ছাড়া এ তালিকায় আরও রয়েছে কিশোরগঞ্জ, নোয়াখালী, নরসিংদী, টাঙ্গাইল, ঢাকা, চট্টগ্রাম ও লক্ষ্মীপুর।

Share This Article

যাঁরা ‘আমি রাজাকার’ বলেন, তাঁদের শেষ দেখে ছাড়বে ছাত্রলীগ

এ যুগের রাজাকারদের পরিণতি ওই যুগের রাজাকারদের মতই হবে : শিক্ষামন্ত্রী

কোটা আন্দোলনকারীদের হটাতে অ্যাকশনে পুলিশ

কোটা পুনর্বহাল করে হাইকোর্টের পূর্ণাঙ্গ রায় প্রকাশ

শিক্ষার্থীরা বঙ্গবন্ধুকন্যাকে কটূক্তি করেনি, কেউ শিখিয়ে দিয়েছে

আর্জেন্টিনার ইতিহাস গড়া জয়, কোপার শিরোপা মেসিদের

ঢাবি হলের কক্ষে কক্ষে কোটাব্যবস্থা নিয়ে প্রচারপত্র দিলেন ছাত্রলীগের শীর্ষ নেতারা

প্রাণহানির প্রতিটি ঘটনার বিচার বিভাগীয় তদন্ত হবে : প্রধানমন্ত্রী

পারলে সশরীরের ঢাকায় যেতাম, আন্দোলন নিয়ে কবীর সুমন

‘পত্রপত্রিকা কী লিখল সেটা দেখে নার্ভাস হওয়ার কিছু নেই’


বীর মুক্তিযোদ্ধাদের সর্বোচ্চ সম্মান দিতে হবে : প্রধানমন্ত্রী

শেখ হাসিনার কারাবন্দি দিবস আজ

‘পত্রপত্রিকা কী লিখল সেটা দেখে নার্ভাস হওয়ার কিছু নেই’

জেলখানায় থাকা আসামিদের বিরাট অংশ মাদকে আসক্ত, বললেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

দুঃখ লাগছে, রোকেয়া হলের ছাত্রীরাও বলে তারা রাজাকার: প্রধানমন্ত্রী

আইনশৃঙ্খলা ভঙ্গের চেষ্টা করলে কঠোর ব্যবস্থা: ডিএমপি কমিশনার

আর্জেন্টিনার ইতিহাস গড়া জয়, কোপার শিরোপা মেসিদের

তিস্তা প্রকল্পের কাজ ভারতেরই করা উচিত: প্রধানমন্ত্রী

চীন সফর নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর সংবাদ সম্মেলন শুরু

আমাদের অর্থনীতি এখন যথেষ্ট শক্তিশালী: প্রধানমন্ত্রী

প্রধানমন্ত্রীর সংবাদ সম্মেলন আজ

ফুটবলের উন্নয়নে সহযোগিতা অব্যাহত রাখবে সরকার : প্রধানমন্ত্রী