মোটা অঙ্কের টাকা জঙ্গিদের হাতে দেন গ্রেপ্তার মেহেদী ‌

  নিউজ ডেস্ক
  প্রকাশিতঃ দুপুর ০২:৪৬, বৃহস্পতিবার, ২৪ নভেম্বর, ২০২২, ৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৯

ঢাকা সিএমএম কোর্ট প্রাঙ্গণ থেকে মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত জঙ্গি আসামি ছিনতাইয়ের ঘটনায় জড়িত নিষিদ্ধ ঘোষিত জঙ্গি সংগঠন আনসার-আল-ইসলামের ১ সদস্যকে গ্রেপ্তার করেছে। গ্রেপ্তারকৃতের নাম- মেহেদী হাসান অমি ওরফে রাফি (২৪)।

বুধবার রাজধানীর যাত্রাবাড়ী এলাকা থে‌কে তাকে গ্রেপ্তার করে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের কাউন্টার টেরোরিজম ইনভেস্টিগেশন বিভাগ।

বৃহস্পতিবার দুপুরে ডিএমপির সিটিটিসি ইউনিটের প্রধান অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার মো. আসাদুজ্জামান ব‌লেন, সন্ত্রাসবিরোধী আইনের একটি মামলায় গ্রেপ্তার মেহেদী ঘটনার দিন আদালতে মেহেদী হাসান হাজিরা দিতে এসেছিলেন। জঙ্গি ছিনিয়ে নেয়ার ঘটনায় সে সরাসরি জড়িত। মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত জঙ্গিদের হাতে মোটা অঙ্কের টাকা তুলে দেন তি‌নি। পলাতক জঙ্গিরা কারাগার থেকে বের হয়ে হঠাৎ করে টাকা কোথায় পাবে, তাদের যেন টাকার সমস্যা না হয় তাই মেহেদী তাদের হাতে মোটা অঙ্কের টাকা তুলে দেন।

গত ২০ নভেম্বর দুপুরে ঢাকার চিফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালত প্রাঙ্গণ থেকে পুলিশের চোখে স্প্রে করে প্রকাশক দীপন হত্যা মামলার মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত দুই আসামিকে ছিনিয়ে নিয়ে যান জঙ্গিরা। ছিনিয়ে নেয়া দুই জঙ্গি হলেন মইনুল হাসান শামীম ও আবু সিদ্দিক সোহেল

পুলিশ জানায়, জঙ্গি আসামি ছিনতাইয়ের ঘটনায় গ্রেপ্তার মেহেদী প্রধান সমন্বয়ক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। মেহেদী নিষিদ্ধ ঘোষিত জঙ্গি সংগঠন আনসার-আল-ইসলামের শীর্ষ নেতা বরখাস্তকৃত মেজর জিয়ার সাথে সমন্বয় ক‌রে সংগঠনের আসকরি শাখার সদস্যদের রিক্রুট করেন। মেহেদী সংগঠনের শীর্ষস্থানীয় নেতা এবং বিভিন্ন মামলায় গ্রেপ্তার আসামিদের সাথে নিয়মিত যোগাযোগ রক্ষা করতেন।

প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায়, নিষিদ্ধ ঘোষিত জঙ্গি সংগঠন আনসার-আল-ইসলামের শীর্ষস্থানীয় নেতাদের নির্দেশে ঢাকার সিএমএম আদালত প্রাঙ্গণ থে‌কে মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত জঙ্গি আসামিদের ছিনিয়ে নেয়ার পরিকল্পনা করা হয়। গ্রেপ্তার মেহেদী আদালতে জঙ্গি আসামিদের বিচারাধীন মামলায় নিয়মিত হাজিরা দেয়ার সময় অন্যান্য আসামিদের সাথে যোগাযোগ করতেন এবং তাদের সংগঠনের পরিকল্পনার কথা জানাতেন।

গ্রেপ্তার মেহেদীর বিরুদ্ধে রাষ্ট্র ও সরকারবিরোধী কার্যকলাপে জড়িত থাকার অভিযোগে ২০১৬ সালে ঢাকার মোহাম্মদপুর, সূত্রাপুর এবং বাড্ডা থানায় সন্ত্রাস বিরোধী আইনে ৩টি মামলা হয়। এছাড়াও ২০১০ এবং ২০১২ সালে সিলেট কোতয়ালী থানায় সন্ত্রাস বিরোধী আইনে ২টি মামলা রয়েছে।

Share This Article